ফ্লাডলাইট

নাথান লায়নের “ঘরে ফেরা” এবং মানুকা ওভালের গল্প

অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী ক্যানবেরায় অবস্থিত মানুকা ওভাল স্টেডিয়ামের স্মৃতি বাংলাদেশের মানুষের কাছে এখনো সতেজ থাকার কথা। গত বিশ্বকাপে এখানেই আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ পড়েছিলো টাইগারদের। সেদিন মানুকা ওভাল হয়ে গিয়েছিলো এক টুকরো “মিরপুর”।

নাথান লায়নের স্মৃতিতে মানুকা ওভাল যেন এক আবেগের নাম। এই মাঠেই তার পেশাজীবন শুরু। সহকারী কিউরেটর হিসেবে চার বছর চাকরি করেছেন এখানে, ছিলেন বর্তমান হেড কিউরেটরের সহযোগী।

অস্ট্রেলিয়া যখন ২০০৭ বিশ্বকাপ জয় করে লায়ন তখন প্রথম শ্রেণীর একটি ম্যাচের জন্য উইকেট বানাচ্ছিলেন। এখানে কাজ করেছেন ২০১০ সাল পর্যন্ত।

নাথান লায়ন নিয়ন আলোয় neonaloy

এই ক্যানবেরা শহরেই জন্ম এবং বেড়া উঠেছেন লায়ন। ক্রিকেট খেলার শুরুও এখানেই। ক্রিকেটের পাশাপাশি নিয়েছিলেন কিউরেটরের চাকরি। অবশ্য ক্রিকেটার হবার স্বপ্নে ক্যানবেরা ছেড়ে পাড়ি জমান এডিলেডে।

বেশিদিন অপেক্ষা করতে হয়নি, ২০১১ সালে শ্রীলংকার বিপক্ষে অভিষেক হয় সাদা পোশাকে লায়নের।

সেই শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়েই বিশ্বের ১১৮ তম এবং অস্ট্রেলিয়ার ১১ তম টেস্ট ভেন্যু হিসেবে অভিষেক হচ্ছে মানুকা ওভালের।

আগামীকাল বাংলাদেশ সময় ভোর চারটায় মানুকা ওভালে মুখোমুখি হবে অস্ট্রেলিয়া এবং শ্রীলংকা সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে।

নাথান লায়ন যখন কাল বল বা ব্যাট করবেন তখন সেটি হবে তার জন্য “স্পেশাল মোমেন্ট”, বলেছেন লায়ন। অসংখ্য বন্ধুবান্ধব এবং তার পরিবার উপস্থিত থাকবে মাঠে। ক্যানবেরার তিন সন্তান লায়ন, ব্র‍্যাড হ্যাডিন এবং মাইকেল বেভান ব্যাগি গ্রিন মাথায় চাপাবার সুযোগ পেয়েছেন এখন পর্যন্ত, নিঃসন্দেহে লায়ন তাদের ভেতর সবচেয়ে বড় টেস্ট ক্রিকেটার।

নাথান লায়ন নিয়ন আলোয় neonaloy

লায়ন চাকরি ছাড়ার সময়েই ক্যানবেরা টেস্ট ভেন্যুর মর্যাদা পাওয়ার জন্য তোড়জোড় শুরু করে। ২০১৩ সালে এই মাঠের ১০০ বছর পূর্তি স্মরণীয় করে রাখতে টেস্ট ম্যাচ আয়োজন করতে চেয়েছিলো কর্তৃপক্ষ, তবে অনুমতি পায়নি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার।

ক্যানবেরার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ইতিহাস অবশ্য খুব একটা মধুর না, বেশ উপেক্ষিত অস্ট্রেলিয়ার বিখ্যাত সব ভেন্যুর ভিড়ে।

১৯৯২ বিশ্বকাপে সাউথ আফ্রিকা-জিম্বাবুয়ে ম্যাচ দিয়ে অভিষেক হয় মানুকা ওভালের। দ্বিতীয় ম্যাচ আয়োজন করতে অপেক্ষা করতে হয় ২০০৮ সাল পর্যন্ত, সিবি ট্রাই-নেশন সিরিজের ভারত-শ্রীলংকা ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয় তখন। আর অস্ট্রেলিয়া এই মাঠে প্রথম ম্যাচ খেলে ২০১৩ সালে উইন্ডিজের বিপক্ষে।

২০১৫ বিশ্বকাপের আগে এখানে বেশ কিছু সংস্কারকাজ করা হয়।

মানুকা ওভাল নিয়ন আলোয় neonaloy

তবে মানুকা ওভাল অস্ট্রেলিয়ায় বিখ্যাত বছরে একটি ক্রিকেট ম্যাচের জন্য।

প্রতি মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া সফরে আসা প্রথম দলের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী একাদশ এই মাঠে ৫০-ওভারের একটি ম্যাচ খেলে। প্রধানমন্ত্রী নিজে সেদিন মাঠে উপস্থিত থাকেন। প্রধানমন্ত্রীর দলটিকে বলা হয় Prime Minister’s XI

এই দলের অধিনায়ক হওয়াকে অস্ট্রেলিয়ায় অত্যন্ত সম্মানজনক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। দলটাও হয় শক্তিশালী। সিনিয়র ক্রিকেটার বা অবসরে চলে যাবেন এমন কাউকে অধিনায়ক করা হয়। প্রধানমন্ত্রী নিজে তাকে ক্যাপ পরিয়ে দেন। টসের সময় উপস্থিত থাকেন উইকেটে।

গত বছর অধিনায়ক ছিলেন জর্জ বেইলি, তার ৫১ রানে ভর করে প্রধানমন্ত্রী একাদশ সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে জয় পায় ৪ উইকেটে। যেখানে জাতীয় দল ১-২ ব্যবধানে সিরিজ হারে!

১৯৫১ সালে প্রধানমন্ত্রী রবার্ট মেনজিস এই বার্ষিক ম্যাচের প্রচলন শুরু করেন। এবং সেবার প্রতিপক্ষ ছিলো উইন্ডিজ।

১৯৬২ সালে ম্যাচ খেলার জন্য অবসর ভেঙে ফিরে আসেন স্যার ডন ব্র‍্যাডম্যান, সেটাই ছিলো তার জীবনের শেষ ম্যাচ। এমসিসি বোলার ব্রায়ান স্টাথামের বলে মাত্র ৪ রানে বোল্ড হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে বলেছিলেন-

“It wouldn’t happen in a thousand years. Anyway that’s my final appearance at the wicket.”

অথচ টেস্ট ক্যারিয়ারের শেষ ইনিংসে এই ৪ রান করলেই তার গড় হয়ে যেতো ১০০!

১৯৫১-১৯৬৫ সাল পর্যন্ত টানা চলার পর কিছুদিন বিরতি পড়ে এই প্রথার। হয়তো সে সময়ের প্রধানমন্ত্রী চাননি।

তবে ১৯৮৪ সাল থেকে একটানা চলছে এই ম্যাচ। ২০১৮ সালের লাস্ট প্রতিপক্ষ ছিলো সাউথ আফ্রিকা।

অস্ট্রলিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিজে এই একাদশ নির্বাচন করেন যেখানে জাতীয় দলের পাশাপাশি তরুণ গ্রেড ক্রিকেটাররাও সুযোগ পায়।

বিভিন্ন সময়ে ইংল্যান্ড, ভারত, পাকিস্তান, উইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড, এমসিসি পরাজয়ের স্বাদ পেয়েছে প্রধানমন্ত্রী একাদশের বিপক্ষে।

আরো পড়ুনঃ একটি “রাজনৈতিক স্টেডিয়াম” এর গল্প

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top