লাইফস্টাইল

টুরেট সিনড্রোম, বিব্রতকর এই রোগটির কোন চিকিৎসা নেই!

টুরেট সিনড্রোম নিয়ন আলোয় neonaloy

আমার ছোটখালা তখন নতুন নতুন চাকরিতে ঢুকেছেন। প্রায় প্রতিদিন তার কর্মস্থলের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথাবার্তা হত। একদিন দেখি তিনি অফিস থেকে এসে হাসতে হাসতে লুটিয়ে পড়ছেন। জিজ্ঞেস করতে বললেন, যে উনাদের অফিসে আজকে একজন লোক এসেছেন যিনি কথা বলার সময় এমনকি চুপচাপ বসে থাকার সময়ও চোখ টিপ মারার মত অদ্ভূত ভংগি করেন। প্রথমে অন্যরা তাকে ভুল বুঝলেও পরে জানতে পেরেছে যে বেচারার এটা অনেক ছোটবেলা থেকেই সমস্য। খালার গল্প বলার ক্ষমতা এবং লোকটাকে অনুকরণ করা নিয়ে আমিও কিচ্ছুক্ষণ হাসাহাসি করলাম। পরবর্তীতে এমন মানুষকে কয়েকবার সামনাসামনি আমিও দেখেছি। বিভিন্ন নাটক সিনেমায় কমেডি রোলের চরিত্রগুলোকে অনেকসময় এমন কিছু অদ্ভূত ভংগি করতে দেখা যায় যা দেখে দর্শকদের হাসি পেয়ে যায়। কিন্তু বাস্তবে এটা হাসির কোন বিষয় নয়, এটা হচ্ছে এক ধরনের নিউরো-মটর সমস্যা যা টুরেট সিনড্রোম নামে পরিচিত।

কেন এই অদ্ভুত অঙ্গভঙ্গী?

টিক সিনড্রোমের বিভিন্ন শাখার মধ্যে একটি টুরেট সিনড্রোম। যখন অনেকগুলো মোটর টিক এবং অন্তত একটা ফোনেটিক টিক এক বছরের বেশি সময় ধরে রোগীর শরীরে থাকে তখন তাকে টুরেট সিনড্রোম বলা হয়।

বারবার চোখের পাতা ফেলা, কাশি দেওয়া, গলা পরিষ্কার করা এবং মুখের বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি করা টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত রোগীর লক্ষণ।

টুরেট সিনড্রোম নিয়ন আলোয় neonaloy

ধারণা করা হয় ছোট্ট বাচ্চা এবং স্কুল পড়ুয়াদের মধ্যে শতকরা এক ভাগ টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত। একসময় একে অদ্ভুত এবং দুর্লভ রোগ বলে মনে করা হত এবং কপ্রোলেলিয়া নামক রোগের সাথে একই সঙ্গে পাওয়া যেত।

জিন মারটিন চারকট নামের এক ব্যক্তি তার রেসিডেন্ট “জরজেস আলবার্ট এডওয়ার্ড ব্রুটাস গিলেস দে লা টুরেট”এর নামে এই রোগের নামকরণ করেন।

আলবার্ট টুরেট একজন ফরাসী চিকিৎসক এবং নিউরোলজিস্ট ছিলেন যিনি ১৮৮৫ সালে টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত তার নয়জন রোগীর কথা প্রকাশ করেন।

গৎবাঁধা সংজ্ঞার অনুবাদ করলে বলা যায় যে, টুরেট সিনড্রোম সামগ্রিকভাবে হচ্ছে একটি স্নায়বিক সমস্যা যেখানে অঙ্গপ্রত্যঙ্গের সঞ্চালন এর অবচেতন পুনরাবৃত্তি হয়। দৃশ্যমানভাবে মনে হয় যে স্বাভাবিক আচরণগুলো খুবই অস্বাভাবিকভাবে করা হচ্ছে। টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত রোগীদের মনে হয় যে তার চোখের পাতায় কিছু পড়েছে তাই বার বার চোখের পাতা ফেলা দরকার, কিংবা গলায় কোনো কিছু আটকে রয়েছে তাই বারবার ঢোক গেলা দরকার, সাথে বারবার কাঁধ ঝাঁকানো বা শ্রাগ করা তো আছেই।

টুরেট সিনড্রোম কি বংশগত?

অনেক আগে গবেষণাপত্রে মনে করা হত যে টুরেট সিনড্রোমের জন্য বংশগত কোন প্রভাবক বা জিন দায়ী, বংশগতির “অটোসোমাল ডমিন্যান্ট মোড” এর জন্যই বাচ্চাতে এমন টিক সিনড্রোম বা টুরেট সিনড্রোম দেখা দেয়।

টুরেট সিনড্রোম নিয়ন আলোয় neonaloy

কিন্তু পরবর্তীতে গবেষকরা পেয়েছেন যে বংশগতির এই সূত্র অনেক জটিল এবং ছোটখাট কয়েকটি জিন বংশানুক্রমিকভাবে টুরেট টাইপের সিনড্রোমগুলোর জন্য দায়ী হলেও শিশুর চারপাশের অবস্থাও এর জন্য দায়ী। সাধারণত একজন টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত রোগীর কাছ থেকে শতকরা পঞ্চাশ ভাগ জিন বংশগতভাবে চলে আসতে পারে কিন্তু তারপরেও পরিবারের কোন সদস্যের টুরেট সিনড্রোম থাকলেও তার পরবর্তী প্রজন্মে অনেক সময় সেটা নাও থাকতে পারে কিংবা থাকলেও খুবই কম আকারে দেখা যেতে পারে। রোগী পুরুষ না মহিলা সেটার উপরেও অনেকসময় টুরেট সিনড্রোমের প্রকাশ হবে কি হবে না সেটা নির্ভর করে। তুলনামূলকভাবে মহিলাদের চেয়ে পুরুষদের এমন সিনড্রোম বেশি হয়ে থাকে।

ভালো হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু?

যদিও টুরেট সিনড্রোম সম্পূর্ণভাবে ভালো হয়ে যাওয়ার মত কোন ওষুধ নেই, আশার কথা হচ্ছে এটা তেমন কোন ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলে না মানুষের শারীরিক বা ব্যক্তিগত জীবনের উপর।অনেক সময় দেখা যায় যে বয়সের সাথে এই সিনড্রোমের অনেক লক্ষণই কমে কিংবা সহনীয় পর্যায়ে চলে আসে। টুরেট সিনড্রোম কখনও আক্রান্ত ব্যক্তির বুদ্ধিমত্তা কিংবা দক্ষতার উপর প্রভাব ফেলে না। কর্মজীবনে বা পরবর্তীতে তেমন সমস্যা না হলেও, বিষণ্ণতায় ভোগা কিংবা আতংকগ্রস্থ হওয়ার মত নানা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া প্রাত্যহিক জীবনে প্রভাব ফেলতে পারে।

টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত বাচ্চাদের যত্নঃ

টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত বাচ্চাদের স্কুল নিয়ে সাধারণত তেমন বড়ধরনের সমস্যা হয়না। তারপরেও অভিভাবককে সতর্ক থাকতে হয়। শিখার সমস্যা, অবসেসিভ-কমপালসিভ সিম্পটম কিংবা লেখার সময় হাত কাঁপা এসব সমস্যা দেখা দিতে পারে কিছু ক্ষেত্রে। তাই টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত শিশুসন্তানকে স্কুলে পাঠানোর আগে বাড়িতে কিছু প্রি-স্কুলিং আইডিয়া দিয়ে রাখতে হবে। শিশুদের জন্য উপযোগী বিশেষ স্কুলে পাঠানো যেতে পারে। শিক্ষার পথ সুগম করতে অভিভাবক, শিক্ষক এবং স্কুল কর্তৃপক্ষের মধ্যে ভালো সম্পর্ক আর বোঝাপড়ার কোন বিকল্প নেই।

টুরেট সিনড্রোম নিয়ন আলোয় neonaloy

একটি টুরেট আক্রান্ত শিশুর উপসর্গ

অনেক সময় এই সিনড্রোমে আক্রান্ত বাচ্চার লেখার সময় সমস্যা হয় কিংবা নির্দিষ্ট কোন পরিবেশে নিজেকে সহজে মানিয়ে নিতে পারেনা। পড়ালেখায় পিছিয়ে পড়তে পারে এমনকি। তখন স্কুল কর্তৃপক্ষের উচিৎ আসম্ভব হলে শিশুকে স্বাচ্ছন্দ্য হয় এমন জায়গায় পরীক্ষা নেওয়া। লিখিত পরীক্ষার বদলে মৌখিক পরীক্ষার ব্যবস্থা করাও সমাধান হতে পারে। এভাবে আস্তে আস্তে শিশু স্কুলের সাথে এবং বাইরের পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে পারবে,ফলে টুরেট সিনড্রোমের প্রবণতা অনেক কমে যাবে।

ডেভিড বেকহাম, মোজারট, হুই মেন্ডেল, লেখক স্যামুয়েল জনসনসহ অনেক বিখ্যাত মানুষই টুরেট সিনড্রোমে আক্রান্ত। কিন্তু এটা তাদের সাফল্যের পথে কখনই অন্তরায় হয়ে উঠতে পারেনি।

টুরেট সিনড্রোম নিয়ন আলোয় neonaloy

বাম থেকেঃ বেকহাম; রাউফ; অ্যাকরইড

জনপ্রিয় নায়িকা রানী মুখার্জী অভিনিত বলিউডের ‘হিচকি’ সিনেমাটি সহ আরও অনেক উপভোগ্য সিনেমা তৈরি হয়েছে টুরেট সিনড্রোমকে নিয়ে। এই রোগ সম্পর্কে সেখানে সুন্দরভাবে বর্ণনা দেওয়া হয়েছে যা দেখে রোগটি সম্পর্কে জানা যাবে অনেককিছু। সবসময় মনে রাখতে হবে যে এই রোগে ওষুধের চেয়ে বরং যত্ন এবং সাবধানতা অবলম্বন করলেই সুস্থ জীবন নিশ্চিত করা সম্ভব।

আরও পড়ুনঃ
প্রসঙ্গঃ কিডনী রোগ, ডায়লাইসিস, স্টেমসেল
স্টকহোম সিনড্রোম কি মানসিক রোগ?

 

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top