বিশেষ

এই খাবারটি চাইনিজ রেস্টুরেন্টে দেখলে আপনি হয়তো মামলা করে দিবেন!

বালুট নিয়ন আলোয় neonaloy

ছোট বড় সবারই কম-বেশি পছন্দের খাবার হচ্ছে ডিম। কেউ ডিম ভাজি করে খায় আবার কেউ সিদ্ধ করে। অনেকে ডিমের নানা ধরনের পদ ও খেতে ভালো বাসে। ডিম ভুনা, ডিমের পুডিং সহ প্রায় অনেক খাবারেরই একটা বড় অংশ হল ডিম। কেউ কেউ ডিমের কুসুম খেতে পছন্দ করে আর কেউ কেউ ডিমের সাদা অংশ। সাধারনত সবসময় মুরগির ডিম খাওয়া হলেও, হাঁসের ডিমও পাশাপাশি চলে। শীতের দিনে হাঁসের ডিম সিদ্ধ করে খেতে অনেকেই উপভোগ করেন। হাঁসের ডিম আমাদের দেশে কম খাওয়া হলেও বাইরের দেশে কিন্তু এর চাহিদা আছে। বিশেষ করে ফিলিপাইন, লাওস, কম্বোডিয়ার মত দেশগুলোতে।

ফিলিপাইনের একটি বিখ্যাত খাবার হল BALUT বা বালুট। বালুট হল হাঁসের ডিমের তৈরি এক প্রকার খাবার। হাঁসের ডিম সিদ্ধ করে মশলা দিয়ে খাওয়া হয়। আপাতদৃষ্টিতে শুনে খুব সাধারণ খাবার মনে হলেও মোটেও তা নয়। বালুট হল অপরিপূর্ণ বাচ্চা হাঁসকে ডিমের মধ্যে থাকা অবস্থায় সিদ্ধ করে খাওয়া। হাঁসের ডিমকে ১৪-২০ দিন পর্যন্ত তা দিয়ে রেখে, এর ভেতরে অপরিপূর্ণ হাঁসের বাচ্চা তৈরি হয়। সেই অবস্থায় ডিমটিকে সিদ্ধ করে খাওয়াকেই বালুট বলে।

বালুট নিয়ন আলোয় neonaloy

রেস্টুরেন্টে সুদৃশ্যভাবে পরিবেশিত বালুট

ফিলিপাইনের খুবই জনপ্রিয় খাবার এই বালুট। ফিলিপাইন ছাড়াও চীন, কম্বোডিয়া, ভিয়েতনাম, লাওস, থাইল্যান্ডসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতেও এর প্রচলন রয়েছে। ফিলিপাইনের পথে-ঘাটে সস্তায় বালুট কিনতে পাওয়া যায়। রেস্টুরেন্টগুলোতে খাবারের শুরুতে এ্যাপেটাইজার হিসেবেও এটি দেওয়া হয়।

বালুট সর্বপ্রথম ১৮৮৫ সালে চাইনিজদের হাত ধরে ফিলিপাইনে পরিচিতি পায়। এরপর থেকেই ফিলিপাইনের সংস্কৃতির অংশ হয়ে গেছে এই খাবারটি। এছাড়াও ফিলিপাইনের প্রধান খাদ্যই হচ্ছে বালুট।

বালুট নিয়ন আলোয় neonaloy

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে রাস্তাঘাটেই অহরহ মিলে বালুট, যেমনটা আমাদের দেশে ঝালমুড়ি…

মূলত দুইভাবে বালুট তৈরি করা হয়- অরগ্যানিক ও নন-অরগ্যানিক। প্রথমে হাঁসের ডিম গুলোকে রোদে কিংবা বালির নিচে রাখা হয়। তবে খেয়াল রাখতে হয় যাতে বেশি গরম কিংবা ঠান্ডায় না থাকে। এভাবে রাখলে আস্তে আস্তে ডিমের ভেতরে হাঁসের গঠন শুরু হয়। এভাবে ৯ দিন রাখার পর লাইটের নিচে নিয়ে ডিমগুলোকে পরীক্ষা করা হয় যে ভেতরে কতটুকু গঠন হয়েছে। তারপর নিজেদের স্বাদের পছন্দ অনুযায়ী ডিম গুলোর তাপমাত্রা কম-বেশি করা হয়। এরকম করার ফলে ডিমের ভেতরে একেক হাঁসের গঠন একেক রকম হয়। অনেকে ৫ দিন তা ডিম খেতে পছন্দ করে। তখন ডিমের গঠন পুরোপুরি তৈরি হয় না। জায়গা ভেদের ডিমে তা দেওয়ার সময় পরিবর্তন হয়। ফিলিপাইনে সাধারনত ১৪-১৮ দিন, কম্বোডিয়ায় ১৮-২০ দিন, ভিয়েতনামে ১৯-২১ দিন তা দিয়ে রাখা হয়। আদর্শ সময় হল ১৮ দিন। এটা হল নন-অরগ্যানিক পদ্ধতিতে তৈরি বালুট। হাঁসের মাধ্যমে তা দিয়ে বালুটকে অরগ্যানিক বালুট বলে।

বালুট নিয়ন আলোয় neonaloy
ডিম এভাবে তা দেওয়ার ফলে ভেতরে হাঁসের আবরণ চলে আসে। এরপরে এসব অপূর্ণ ডিম গুলোকে খাওয়ার জন্য নিয়ে আসা হয়।

বালুট অনেক ভাবেই খাওয়া যায়। তবে সিদ্ধ করে খাওয়ার প্রচলনই বেশি। বালুট ডিমকে প্রথমে সিদ্ধ করা হয়। তারপর ডিমের খোসা অল্প একটু ভেঙে ভেতরের পানিটা প্রথমে খাওয়া হয়। তারপর তাতে মন মত মশলা কিংবা লবণ বা নিজের পছন্দমত উপাদান মিশিয়ে খাওয়া হয়। বিয়ার কিংবা ড্রিংকসের সাথে করে নাস্তা হিসেবে এই খাবারটি খাওয়া হয়। ডিমের ভেতরে হাঁসের হালকা অবয়ব চলে আসে, চোখ, ডানা ইত্যাদি বোঝা যায়। অনেক সময় ছোট-ছোট হাড়ও তৈরি হয়।

অনেকে বালুট ভেজে খেতে পছন্দ করে। তখন ভেজে খাওয়া হয়। আবার খাবারের ভেতরে পুর হিসেবেও বালুট ব্যবহার করা হয়।এমনকি কিছু কিছু মানুষ কাঁচা বালুটও খেতে পছন্দ করেন!

বালুট নিয়ন আলোয় neonaloy

একটি বালুটের ব্যবচ্ছেদ!

বালুটকে আমিষের আধার বলা হয়। এতে পুষ্টির পরিমাণ অনেক বেশি। অল্প দামে পুষ্টির চাহিদা পূরণ করা যায় বলে অনেকেরই পছন্দের খাবার বালুট।

কিন্তু এই খাবার নিয়ে বিতর্কও রয়েছে। বিভিন্ন ধর্মের নিয়মানুসারে বালুট খাওয়া নিষিদ্ধ। ইসলাম ধর্মে এই ব্যাপারে নিষেধ রয়েছে। ভিয়েতনাম লোক কাহিনীর মতে বালুট খেলে গর্ভবতী নারীর পুষ্টির চাহিদা পূরণ হয়। আবার বালুট খেলে নাকি পুরুষদের শক্তি বৃদ্ধি হয়, তাই নিষেধ থাকলেও কিংবা বিতর্ক থাকলেও বালুটের ভাল রকমেরই চাহিদা আছে।

আর যেহেতু বালুট হচ্ছে মূলত অপরিপূর্ণ হাঁস, তাই এই নিয়ে এনিম্যাল ওয়েলফেয়ারের বিতর্ক ও নিষেধাজ্ঞা আছে। এই কারণে অনেক জায়গাতেই বালুট নিষিদ্ধ। যদিও এখন আস্তে আস্তে পাশ্চাত্য ধারনা ছড়িয়ে পড়ার ফলে বালুট খাওয়ার পরিমাণ দিন দিন কমে আসছ। হয়ত এরকম চলতে থাকলে একসময় এই বালুট নামের এই খাবারটি বিলুপ্তই হয়ে যাবে।

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top