ফ্লাডলাইট

গ্রুপ পর্ব যখন স্নায়ুপরীক্ষা নেয়

এবারের বিশ্বকাপে নতুন দলগুলোর সংযোজন গ্রুপপর্বে নকআউটের টেনশন এনে দিছে সত্যি, কিন্তু পরের পর্বের টিকেট ঠিকই কাগজে-কলমে এগিয়ে থাকা দলগুলো আদায় করে নিয়েছে। এখন পর্যন্ত হিসাব-নিকাশের উলটপালট করেছে জার্মানি আর জাপান। জার্মানির ইস্পাত মনোভাবে চিড় ধরেছে প্রথম ম্যাচেই, আচমকা মেক্সিকোর সাথে হেরে। পরের ম্যাচে শেষ মিনিটে ওই মনোভাব পাওয়া গেলেও, সেটা এসেছে সুইডেনের ডিফেন্সিভ কৌশলের সৌজন্যে। এমনকি গ্রুপের শেষ ম্যাচেও তাদের চিরাচরিত পাওয়ার ফুটবলের দেখা পাওয়া যায় নি।

গ্রুপে রুশরা প্রথম দুই ম্যাচে আট গোল দিয়ে যেভাবে আকাশে উড়ছিল, শেষ ম্যাচে উরুগুয়ের সাথে তিন গোল খেয়ে তা মাটিতে নেমেছে। যথারীতি উল্লিখিত দুই দলই পরের পর্বে উঠেছে।

বি গ্রুপে প্রত্যাশিত লড়াই দেখা গেছে স্পেন-পর্তুগাল ম্যাচে। তবে দ্বিতীয় পর্বে যেতে দুইদলেরই শক্ত পরীক্ষা নিয়েছে ইরান ও মরক্কো।

সবচেয়ে গোল খরায় ভুগেছে গ্রুপ সি। ফ্রান্সকে ফেবারিট ভাবা হচ্ছে, অথচ গ্রুপপর্ব তারা পার করল মার্জিন গোল ফিগারে, অধিকন্তু নব্বই মিনিটেও নেই সেই ছাপ।

সহজ সমীকরণ কঠিন বানিয়ে গ্রুপ ডি থেকে উঠে আসল আর্জেন্টিনা। নবাগত আইসল্যান্ডের সাথে ড্র করে, ক্রোয়েশিয়ার সাথে অসহায়ভাবে হেরে ছিটকে পড়ার আশঙ্কা তৈরি করে এবং শেষে নাইজেরিয়ার সাথে সাতাশি মিনিটের গোলে দ্বিতীয় রাউন্ড। আর্জেন্টিনার এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় সমস্যা হল দল হয়ে খেলতে না পারা। অন্যদিকে গত বিশ্বকাপের গ্রুপপর্বে বাদ পড়া ক্রোয়েশিয়া এবার গ্রুপ শেষ করেছে গ্রুপ-চ্যাম্পিয়ন হয়ে।

গ্রুপে সুইজারল্যান্ডের সাথে ড্র করা ব্রাজিলকে দেখে ফিফা র‍্যাংকিংয়ের দ্বিতীয় দল বলে মনে হয়নি। অবশ্য এই বিশ্বকাপে র‍্যাঙ্ক বা সহজ প্রতিপক্ষ বলে কিছু নেই। সহজে শেষ ষোলো নিশ্চিত হওয়া সেলেসাওদের আসল পরীক্ষা হবে নকআউটে।

এফ গ্রুপের শেষ দিনের উভয় খেলা শুরু হয়েছিল শেষ ষোলোতে উঠার ত্রিমুখী লড়াইয়ে। প্রথমার্ধে দুই ম্যাচই নিষ্পত্তি হয় গোল শূন্যে। দ্বিতীয়ার্ধে প্রতি দশ মিনিটে আসতে থাকে পয়েন্ট টেবিলে পরিবর্তন। জার্মানির সমান পয়েন্ট নিয়েও পয়েন্ট টেবিলে তিনে থাকা সুইডেনকে কেবল মেক্সিকোর সাথে জিতলে হবে না, অপরম্যাচে জার্মানিকে হারতে হবে দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে। এমন প্যাঁচানো সমীকরণে সুইডেনের সব চাওয়া পূরণ হল, আর তাতে ইউরোপীয় ঐতিহ্য মেনে প্রথম রাউন্ডেই ছিটকে পড়ল ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা। ম্যাচ শেষে কোরিয়ানদের আবেগ জার্মানির বিপক্ষে এই জয়ের গুরুত্ব যেমন বুঝিয়ে দিচ্ছিল, তেমনি নিশ্চিত করে বলা যায় দীর্ঘ মেয়াদে এশিয়ান ফুটবলেও এর প্রভাব পড়তে যাচ্ছে।

জি গ্রুপে প্রত্যাশার পারদ মিটিয়েই পরের পর্বে উঠেছে বেলজিয়াম ও ইংল্যান্ড। অনেকেই বিশ্বজয়ের বাজি রাখতে চায় বেলজিয়ামে। তবে টুর্নামেন্ট শুরুর আগে থেকেই সবার নজর এই ম্যাচটির দিকে থাকলেও হতাশ হতে হয়েছে সবাইকেই। দুই দলই এক ম্যাচ হাতে রেখে রাউন্ড অফ সিক্সটিনে কোয়ালিফাই করায় মুখোমুখি গ্রুপের শেষ ম্যাচটি হয়ে দাঁড়ায় নিয়মরক্ষার লড়াই, আর নকআউট স্টেজে কঠিন প্রতিপক্ষ এড়ানোর উলটো লড়াইয়ে। আর সেই ম্যাচে বেলজিয়াম জয়ী হলেও আড়ালে শেষ হাসিটা হাসতে পারে ইংল্যান্ড!

শেষদিনের ম্যাচগুলো মাঠে গড়ানোর আগেই পোল্যান্ড হিসাব থেকে বাদ- এই একটা তথ্য বুঝিয়ে দেয় এইচ গ্রুপের অবস্থা। আবার প্রতিপক্ষের জালে এক গোল বদলে দিয়েছে বাকি তিন দলের হিসাব-নিকাশ। শেষে ওই এক গোলের ব্যবধানেই দুই ম্যাচের নিষ্পত্তি আসে। জেতে কলম্বিয়া, হারে সেনেগাল কিন্তু হেরেও ফেয়ার প্লে আইনে দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত হয় জাপানের। আর সেনেগালকে গুনতে হয় দুর্বল ফিনিশিংয়ের চড়া মাশুল।

প্রথম রাউন্ড শেষ। বিশ্বকাপ দেখল দল হয়ে খেলার গুরুত্ব। দেখল ছোট-বড় দলের মধ্যে কমে আসা দূরত্ব। আঠারো বিশ্বকাপ জমে উঠল।

Most Popular

To Top