ফ্লাডলাইট

আসন্ন বিশ্বকাপ এবং ডার্ক হর্সেস (পর্ব- ১)  

আসন্ন বিশ্বকাপ এবং ডার্ক হর্সেস (পর্ব- ১)  

দরজায় কড়া নাড়ছে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলার আসর বিশ্বকাপ ফুটবল। আর কদিন পরেই মস্কোতে উদ্বোধন হতে চলেছে ২১তম বিশ্বকাপের আসর। কে এই আসরের হট ফেভারিট, কার হাতে উঠতে যাচ্ছে বিশ্বকাপ-এই সমীকরণ ইতিমধ্যে অনেকবার করে ফেলেছে ফুটবলবোদ্ধারা।

হয়ে যাওয়া বিশটি আসরে এ পর্যন্ত ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ নিজের করে নেওয়ার সুযোগ হয়েছে ৮টি দল তথা দেশের। এ বিশের মধ্যে আবার ব্রাজিল, জার্মানি আর ইতালির সম্মিলিত তেরোটা; উরুগুয়ে, আর্জেন্টিনার দুইটা করে এবং ইংল্যান্ড, ফ্রান্স আর স্পেনের একটা করে। এই সমীকরণই বলে দেয় ফুটবল জগতে ইউরোপ এবং ল্যাটিন আমেরিকার দাপট। ২০১৮ সালের চ্যাম্পিয়ন কে হতে যাচ্ছে? এই আট পরাশক্তির কেউ নাকি আমরা পেতে যাচ্ছি নতুন কোন অপরাজেয়কে? এই প্রশ্নের জবাব নিশ্চিত হয়ে দেওয়া সম্ভব নয়। নতুন কোন পরাশক্তি পাওয়ার সম্ভাবনা আছে নাকি এ আসরে? কতোটুকুই বা সে সম্ভাবনা? আর কারাই বা হতে পারে সে পরাশক্তি? চলুন দেখে আসা যাক এ আসরের ডার্ক হর্সদের।

১. ক্রোয়েশিয়া

ক্রোয়েশিয়া নিয়ে পূর্বাভাস দেয়ার আগে অবশ্যই কয়েকবার ভাবতে হবে আপনাকে। ইউরোপের সেরা লাইনআপগুলার একটি ক্রোয়েশিয়ার। খেলোয়াড়ের ফর্ম হিসেবে চিন্তা করলে তারা শক্তিশালী দলগুলোর একটি, বিশেষ করে তাদের মধ্যভাগের কথা বিবেচনা করলে। সাধাসিধে ভাবে দ্রুত বিদায় নেয়াটাই বরং তাদের জন্য অস্বাভাবিক হবে।

লাইনআপে আছে বর্তমান সময়ের সেরা টিমগুলোতে খেলা সেরা কিছু খেলোয়াড়। দলে আছেন কদিন আগেই ইউরোপ সেরার খ্যাতি অর্জন করা রিয়াল মাদ্রিদের মিডফিল্ডার লুকা মডরিচ। চ্যাম্পিয়নসলিগে বুঝিয়ে দিয়েছেন, ক্যারিয়ারের সেরা সময়টা পার করছেন এখন। তাঁর সাথে আরও থাকবেন স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনার ইভান র‍্যাকিটিচ এবং ইন্টার মিলানের ইভান প্যারিসিক। এমন মধ্যভাগ যে কোন টিমের আত্মবিশ্বাসে চিড় ধরিয়ে দিতে সক্ষম।

গ্রুপ ডি-তে ক্রোয়েশিয়ার প্রতিপক্ষ আর্জেন্টিনা, আইসল্যান্ড এবং নাইজেরিয়া। প্রতিপক্ষ খুব সহজ না হলেও গ্রুপপর্ব পার করতে বেগ পাওয়ার কথা নয় তাদের। গ্রুপপর্বের পজিশন অনুযায়ী হয়তো রাউন্ড অফ সিক্সটিনে মুখোমুখি হতে হবে ফ্রান্স কিংবা পেরু/অস্ট্রেলিয়ার।

ইউরো ২০১৬-তে ফুটবলীয় শৈল্পিকতায় কোটি দর্শকের মন জয় করে নিয়েছিল এই ক্রোয়েশিয়া টিম। রাউন্ড অফ সিক্সটিনে অতিরিক্ত সময়ে পর্তুগালের কাছে পরাজয় মেনে নিলেও অসাধারণ কিছু প্রদর্শনীর মাধ্যমে মুগ্ধ করেছিলো সকল ফুটবলভক্তদের। সেদিনই পূর্বাভাস দিয়েছিল আসন্ন বিশ্বকাপে অপ্রত্যাশিত কিছু করে দেখানোর। ফুটবলবোদ্ধাদের আশা কতোটা পূরণ হতে যাচ্ছে সেটাই দেখার বিষয়।

২. বেলজিয়াম

ফিফা তালিকায় জার্মানি এবং ব্রাজিলের পরেই বর্তমান সময়ের তৃতীয় স্থানটি দখল করে আছে বেলজিয়াম। অতএব, বলার অপেক্ষা রাখে না, আসন্ন বিশ্বকাপের জন্য কতোটা প্রস্তুত তারা। ইউরোপের মাটিতে হতে যাওয়া বিশ্বকাপে অতিরিক্ত সুবিধা তো পেতে যাচ্ছেই ইউরোপিয়ান দলগুলো। আর দল যদি হয় বেলজিয়ামের মতো, তাহলে তো আর কথাই নেই। বেলজিয়ামের লাইনআপ তারুণ্য আর অভিজ্ঞতার এক অপূর্ব মিশ্রণ। খেলোয়াড়রাও মানসিক এবং শারীরিকভাবে সম্পূর্ণ ফিট।

ইডেন হ্যাজার্ড এবং কেভিন ডি ব্রুইন হবে বেলজিয়ামের ট্রাম্প কার্ড। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের সেরা খেলোয়াড়দের তালিকাতে আছেন দুইজনই। তাদের সাথে যোগ দিবেন রোমার রাদজা নাইনগোলান, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের লুকাকু। এই আক্রমণ ভাগ যেকোন সময় যে কোন দলের রক্ষণ ভাগ ভেঙে গোল দিতে সক্ষম।

শুধু সম্মুখে নয়, তাদের রক্ষণভাগও বলিষ্ঠ। ভিন্সেন্ট কোম্পানি, টবি এলড্রেরউয়িরেল্ড, জ্যান ভারটঙ্গহেন নিজ নিজ জায়গায় অদ্বিতীয়। শেষ বাঁধা হিসেবে আছেন অজস্র ক্লিন শিটের মালিক গোলকিপার কোর্তোইস। তেইশ বছর বয়সী, ৬.৬ ফুট লম্বা এ সময়ের সেরা গোলকিপারদের একজন; কোর্তোইস যে কোন টিমের আক্রমণভাগের জন্য এক দুশ্চিন্তার নাম।

গ্রুপ ‘জি’ এ অবস্থান করা বেলজিয়ামের গ্রুপপর্ব নিয়ে দুশ্চিন্তা খুব বেশি হওয়ার কথা নয় যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড, পানামা আর তিউনিসিয়া। রাউন্ড অফ সিক্সটিনে প্রতিপক্ষ হিসেবে কলম্বিয়া কিংবা পোল্যান্ডকে পাওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। অতএব, বড় কিছুর প্রত্যাশা করাটা খুব অস্বাভাবিক নয় বেলজিয়ামের জন্য। ফুটবলের ‘গোল্ডেন জেনারেশন’ অতিবাহিত করা বর্তমান দলটির কাছে এখন প্রত্যাশাটা অনেকটাই বেশি ফুটবলবোদ্ধাদের।

৩. কলম্বিয়া

২০১৪-তে অসমাপ্ত রয়ে যাওয়া সমীকরণ শেষ করতেই মাঠে নামবে কলম্বিয়া। দলে আছে অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপ খেলে আসা নতুন কিছু মুখ। গতবারের আসরে এমনই এক নতুন মুখ ছিলেন হামেস রদ্রিগেজ। গোল্ডেন বুট জয়ী এ যুবকই পাঁচ ম্যাচে ছয় গোল করে বড় স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন। কিন্তু কোয়ার্টার ফাইনালে স্বাগতিক ব্রাজিলের কাছে ২-১ গোলে পরাজিত হয়ে সে স্বপ্নের অবসান ঘটে। চার বছর পর অভিজ্ঞ হামেস আবার মাঠে নামবেন বায়ার্ন মিউনিখে দারুন একটা সময় কাটানোর পর। জাপান, সেনেগাল আর পোল্যান্ডের সাথে থাকা গ্রুপ সহজেই পার করতে পারার কথা কলোম্বিয়ার। রাউন্ড অফ সিক্সটিনে দেখা হবে হয়তো ইংল্যান্ড কিংবা বেলজিয়ামের সাথে। ভাল কিছু করে দেখার সুযোগ হাত বাড়িয়ে আছে কলোম্বিয়ার সামনে। তাই, অনেকের বাজিই এবার কলোম্বিয়ার দিকে।

শুধু বেলজিয়াম, ক্রোয়েশিয়া কিংবা কলোম্বিয়া নয়, ডার্ক হর্সের তালিকায় আছে আরও অনেকেই। আর এই ডার্ক হর্সদের তালিকায় আছে এমন কিছু দল, যাদের একজন খেলোয়াড়ই ঘুরিয়ে দিতে পারে সব হিসাব-নিকাশ। তাদের নিয়ে পড়ুন- আসন্ন বিশ্বকাপ এবং ডার্ক হর্সেস (পর্ব- ২)

Most Popular

To Top