ফ্লাডলাইট

গোল্ডেন বুট তুমি কার?

গোল্ডেন বুট তুমি কার? Neonaloy

আন্তর্জাতিক বিরতির পর আবার শুরু হবে ক্লাব গুলোর লড়াই। বর্তমানে ইউরোপিয়ান গোল্ডেন বুট এর রেস খুব ভালো মতোই জমে উঠেছে। বিগত কয়েক বছরের মেসি রোনালদোর রাজত্বে এবার বেশ কিছু নতুন মুখ হানা দিয়েছে।

প্রথমেই বলা যাক মিশরীয় জাদুকর মোহাম্মদ সালাহ’র কথা। এইবার লিভারপুলের বেস্ট সাইনিং যে মোহাম্মদ সালাহ এটা চোখ বন্ধ করেই বলে দেওয়া যায়। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে মাত্র ৩০ ম্যাচ খেলে ২৮ গোল এই মিশরীয় কিং এর। সালাহ’র সর্বমোট পয়েন্ট ৫৬।

গোল্ডেন বুট তুমি কার? Neonaloy

দুরন্ত গতিতে ছুটে চলা সালাহ পারবেন কি নিজেকে নতন উচ্চতায় নিতে?

 

এর পরেই তালিকায় আছে আর্জেন্টাইন ক্ষুদে জাদুকর মেসি। বিগত কয়েক বছরের মতো এবারও এই তালিকাতে আছেন তিনি। তালিকাতে ২য় হলেও তার দল বার্সেলোনা স্প্যানিশ লিগে ১ম স্থানে বেশ সুরক্ষিত অবস্থায় আছে। ২৮ ম্যাচে ২৫ গোল(৫০ পয়েন্ট) মেসির। হাতে আরো কিছু ম্যাচ থাকার কারনণে এই রেসে ভালোমতোই আছেন এই লিটল ম্যাজিশিয়ান।

গোল্ডেন বুট তুমি কার? Neonaloy

তবে কি এবার তাঁর রাজত্বে ভাগ বসাচ্ছে অন্য কেউ?

 

২৪ গোল(৪৮ পয়েন্ট) নিয়ে তালিকার ৩য় স্থানে একইসাথে আছেন ৩ জন। ইতালিয়ান সিরি আ’তে লাৎজিও’র ইতালিয়ান স্ট্রাইকার চিরো ইমোবলে, ফ্রেঞ্চ লিগ ১ এ পিএসজি’র উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার এডিনসন কাভানি এবং ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের টটেমহ্যামের ইংলিশ স্ট্রাইকার হ্যারি কেন। ইমোবলে এবং কাভানি গোল্ডেন বুট রেসে থাকলেও হ্যারি কেন এর রেস মূলত শেষ হয়ে গেছে তার ইনজুরির কারণে।

তালিকার ৪র্থ স্থানে ৩১ গোল নিয়ে আছে পর্তুগিজ লিগের বেনফিকা তে খেলা ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার জোনাস। আপনাদের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে ৩১ গোল নিয়ে তালিকার ৪র্থ স্থানে জোনাস কিভাবে থাকে! গোল্ডেন বুট এর রেসে ইউরোপিয়ান টপ ৫ লিগে খেলা ফুটবলারদের প্রত্যেকের গোল এর পয়েন্ট ২ করে ধরা হলেও র‍্যাংকিং এর ৬ থেকে ২১ নাম্বার লিগে খেলা প্লেয়ারদের প্রত্যেক গোলের পরিবর্তে ১.৫ পয়েন্ট এবং ২২ বা তার নিচের লিগে খেলা প্লেয়ারদের গোল পয়েন্ট ১ ধরা হয়। পর্তুগিজ লিগ এই তালিকার ৬ এ তাই জোনাসের মোট পয়েন্ট ৪৬.৫।

গোল্ডেন বুট এর রেসে তালিকার ৫ম স্থানে আছেন বুন্দেসলিগার বায়ার্ন তারকা পোলিশ স্ট্রাইকার রবার্ট লেওয়ান্ডফস্কি। তিনি লিগে ২৩ গোলের(৪৬ পয়েন্ট) মালিক।

এই তালিকায় একটি নাম না দেখে আপনি যারপরনাই অবাক হতে পারেন সেটি হলো রিয়াল মাদ্রিদের পর্তুগিজ যুবরাজ ক্রিস্টিয়ানো রোনাদোর। তিনি তালিকার ৬ষ্ঠ স্থানে ২২ গোল(৪৪ পয়েন্ট) নিয়ে অবস্থান করছেন। লিগের প্রথম দিকে ম্যাচ সাসপেনসন ও অফফর্মের কারণে এই রেস থেকে প্রায় ছিটকে পড়েছিলেন। কিন্তু গত কিছু ম্যাচের অবিশ্বাস্য ফর্ম তাকে আবার তালিকায় ফিরিয়ে এনেছে। রোনাদোর সাথে ৬ষ্ঠ স্থানে যৌথভাবে আছে আর্জেন্টাইন আন্ডাররেটেড স্ট্রাইকার ইন্টার মিলানের মাউরো ইকার্দি। যিনি তার সর্বশেষ ম্যাচে সুপার হ্যাটট্রিক(৪ গোল) করেছেন।

গোল্ডেন বুট তুমি কার? Neonaloy

শেষ হাসিটা কি হাসতে পারবেন রোনালদো?

 

৭ম স্থানে যৌথভাবে আছেন ম্যানসিটির আর্জেন্টাইন সুপারস্টার সার্জিও আগুয়েরো আর বার্সেলোনার উরুগুইয়ান সুপারস্টার লুইস সুয়ারেজ। তাদের গোল ২১ টি(৪২ পয়েন্ট)করে। এই সুয়ারেজই মেসি রোনালদোর আমলে ২ বার গোল্ডেন বুট জিতেছেন!

তালিকার ৮ম স্থানে আছে সাবেক বার্সা তারকা, বর্তমান পিএসজির ব্রাজিলিয়ান সেনসেশন নেইমার জুনিয়র। ২২২ মিলিয়নে এই দল বদলেই পিএসজি এসেছেন নেইমার। লিগেও তার দল বেশ সুরক্ষিত আছে ১ নাম্বার অবস্থানে। তিনিও ২০ ম্যাচে ২০ গোল (৪০ পয়েন্ট)করে বেশ ভালোমতই ছিলেন গোল্ডেন বুট রেসে। কিন্তু প্রায় ৩ মাসের ইনজুরিতে নেইমার ছিটকে পড়েছেন এই রেস থেকে।

৯ম স্থানে অবস্থান করছেন তুরস্ক’র সুপার লিগের গ্যালাতাসারাই তে খেলা গোমিস। ২৫ ম্যাচে ২৫ গোল(৩৭.৫ পয়েন্ট) গোমিসের ।

তালিকার ১০ম স্থানে রয়েছে পর্তুগিজ লিগের স্পোর্টিং সিপিতে খেলা বার দোস্ত। তিনি ২৩ ম্যাচে ২৩ গোল(৩৪.৫ পয়েন্ট) করেছেন স্পোর্টিং সিপির হয়ে।

শীর্ষ ১০ এর ঠিক আশেপাশেই আছেন মোনাকো’র কলাম্বিয়ান স্ট্রাইকার রাদামেল ফ্যালকাও(৩৪ পয়েন্ট), এই বছরের লা-লিগা চমক জিরোনা’র উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার ক্রিস্টিয়ান স্টুয়ানি(৩৪ পয়েন্ট), জুভেন্টাস এর আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার পাওলো দিবালা(৩৪ পয়েন্ট), এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদের ফ্রেঞ্চ স্ট্রাইকার আন্তোনিও গ্রিজমানের(৩৪ পয়েন্ট)।

সব দলেরই এখনো বেশ কিছু ম্যাচ বাকি রয়েছে। রয়েছে বাকি আরো কিছু হ্যাটট্রিক অথবা সুপার হ্যাটট্রিক দেখার ম্যাজিকাল মোমেন্ট। লিগের সর্বশেষ ম্যাচে মাত্র ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ৩ লিগের ৩ দলের প্লেয়াররা করেছে সুপার হ্যাটট্রিক। তাই এখনো নিশ্চিতভাবে বলা যাচ্ছে না কে জিততে পারে এই গোল্ডেন বুট।

গোল্ডেন বুটে এই সিজনে কে অংকন করবেন শেষ চুমু তার অপেক্ষায় রইলাম আমরা ফুটবলফ্যানরা।

 

আরো পড়ুনঃ রোনালদোর প্রেমিকারা 

Most Popular

To Top