টেক

১০ টি দক্ষতা যা আপনি শেখা শুরু করতে পারেন আজ থেকেই

১০ টি দক্ষতা যা আপনি শিখা শুরু করতে পারেন আজ থেকেই neonaloy

বর্তমান যুগের সাথে নিজেকে তাল মিলিয়ে চলতে আমাদের বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে হচ্ছে। কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে নতুন করে দক্ষতা অর্জন করতে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় সময় ,অর্থ আর পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতি।
আপনার পরিচয় আপনার কর্মে । আর আপনি যদি হন বিভিন্ন বিষয়ে দক্ষ তাহলে আপনার চাহিদা হবে আকাশচুম্মবি। কিন্তু সময়, অর্থ আর পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির স্রোতে গা ভাসাতে গিয়ে অনেক কারণেই নতুন কিছু শেখা হয় না। আপনার ব্যস্ত জীবন আর অর্থের কথা বিবেচনা করে অনলাইন জগতের এমন কিছু লোভনীয় জায়গা আছে যার মাধ্যমে আপনি চাইলে দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন আজ থেকেই। নতুন বছরের উদ্যম আর যুগের চাহিদার কথা বিবেচনা করে আপনাদের সাথে কোডিং এবং এথিক্যাল হ্যাকিং-এর মতো ১০ টি এমন দক্ষতা নিয়ে আলোচনা করবো যার গুঞ্জন পুরো পৃথিবীব্যাপী সমাদৃত।

১ . কোডিংঃ

কোডিং শিখার মাধ্যমে আপনি নিজেকে গড়ে তুলতে পারেন খুব ভালো মানের কোডার হিসেবে। আর একজন ভালোমানের কোডারের চাহিদা অনেক বেশি মার্কেটপ্লেসে। এ শিক্ষার মাধ্যমে আজকের এই পৃথিবীর সবচেয়ে চাহিদাপূর্ণ (জাভাস্ক্রিপ্ট,সুইফট,সি# ইত্যাদি) কিছু প্রোগ্রামিং টুলসের ব্যবহার আপনি খুব সহজেই করতে পারবেন। আপনি সহজেই বানাতে পারবেন বিভিন্ন ওয়েবসাইট।

২ . সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজারঃ

আমরা সবাই কম বেশি সোশ্যাল মিডিয়া চালাই। বিভিন্ন কোম্পানি সোশ্যাল মিডিয়াকে এখন হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে তাদের পণ্যের প্রচারণার জন্য। আপনি যদি মার্কেটিং এক্সপার্ট হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারেন তাহলে আপনি নিজেই নিজের কোম্পানির প্রচারণা করতে পারবেন ঘরে বসে। ফেসবুক এড’স আর গুগুল এড’স আর মাধ্যমে প্রচারণা করে ছড়িয়ে দিতে পারবেন পুরো পৃথীবিতে।

৩. হোয়াইট হ্যাট হ্যাকারঃ

অনলাইন জগতে প্রতিদিন কোটি কোটি তথ্য শেয়ার করা হয়ে থাকে । আর এ তথ্যগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জের ব্যাপার । তাই (হোয়াইট হ্যাকার) কম্পিউটার সিকিউরিটি স্পেশালিস্টরা বিভিন্ন সুরিক্ষিত সিস্টেমকে ভঙ্গ করে সুরক্ষা নিশ্চিত করে। পৃথিবীজুড়ে হোয়াইট হ্যাট হ্যাকারদের অসম্ভব মূল্যায়ন। তাই আপনি আজ থেকেই এ বিষয়ে নিজেকে দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারেন।

৪. আইওএস ডেভেলপমেন্টঃ

ডেভেলপারদের মধ্যে আইওএস ডেভেলপারদের মূল্য অনেক বেশি। বিভিন্ন ভালোমানের অ্যাপস এই ডেভেলপমেন্টের মাধ্যমে হয়ে থাকে। আপনি এই ডেভেলপম্যান্ট শেখার মাধ্যমে শুরুতে সহজেই ওয়েদার আর লোকেশন মতো অ্যাপস বানাতে পারবেন।

৫ . প্রোজেক্ট ম্যানেজমেন্টঃ

বিভিন্ন কোম্পানি তাদের কোম্পানির উন্নতি আর ম্যানেজমেন্টের জন্য প্রোজেক্ট ম্যানেজার খুঁজে থাকে। তাই আজকের এই পৃথীবিতে এ কাজে দক্ষ লোকের দাম অনেক বেশি। প্রোজেক্ট ম্যানেজমেন্টে দক্ষ হওয়ার মাধ্যমে আপনি আপনার নিজের কোম্পানির বিভিন্ন বিষয় সহজে আর সুপরিকল্পিতভাবে সম্পন্ন করতে পারবেন।

৬ . বিগ ডাটা ম্যানেজমেন্টঃ

পৃথিবীজুড়ে প্রতিদিন অসংখ্য ডাটা তৈরি হচ্ছে। আর বিভিন্ন কোম্পানিও তাদের এই ডাটা সংরক্ষণে হিমশিম খাচ্ছে। তাই বিগ ডাটা ম্যানেজমেন্টের উপর সুনিপুণ ব্যক্তিদের চাহিদাও পুরো পৃথিবীব্যাপী। আপনি এ বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করে বিভিন্ন কোম্পানির বিগ ডাটা ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন সহজেই।

৭ . মাইক্রোসফট অফিস ট্রেনিংঃ

আজকের এই আইসিটির দুনিয়ায় মাইক্রোসফট অফিসের ব্যবহার আসলে বলা বাহুল্য। ভার্চুয়াল জগতের প্রত্যেকটি সেক্টরে এর চাহিদা বিদ্যমান। আপনি যদি এ বিষয়ে দক্ষ হয়ে উঠতে পারেন তাহলে চাকুরীর জগতে অন্যান্য প্রতিদ্বন্দীর থেকে আপনি থাকবেন একধাপ এগিয়ে।

৮ . এডোবের উপর দক্ষতাঃ

বর্তমান বিশ্বে ডিজাইনারদের চাহিদা অনেক। এডবের বিভিন্ন সফটওয়্যারের উপর দক্ষতা অর্জন করলে আপনার মূল্য বেড়ে যাবে কয়েক ধাপ। লোগো ডিজাইন, ক্সেচ, টাইপোগ্রাফি, ছবি এডিট এর মতো অসংখ্য কাজ করতে পারবেন এই সফটওয়্যার গুলো ব্যবহারের মাধ্যমে। তাই আজ থেকেই এ দক্ষতা অর্জন শুরু করতে পারেন ।

৯ . এন্ড্রয়েড ডেভেলপমেন্টঃ

এন্ড্রয়েড ডেভেলপমেন্টের উপর দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে আপনি সহজেই আপনার মোবাইল দিয়ে বিভিন্ন অ্যাপস বানাতে পারবেন। আপনার পছন্দের অ্যাপস ক্লোন করতে পারবেন। আর এন্ড্রয়েড ডেভেলপারদের চাহিদা পৃথিবীব্যাপী।

১০ . হার্ডওয়্যার গেম ডেভেলপমেন্টঃ

যুগ বদলাচ্ছে। তাই এখন গেম ডেভেলপমেন্ট এখন শুধু গেম স্টুডিওতেই সীমাবদ্ধ না। আপনি ঘরে বসেই দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে তৈরী করতে পারেন বিশ্বের নামিদামী সব গেম। আর গেমারদের চাহিদা পুরো বিশ্ব জুড়ে।

Most Popular

To Top