লাইফস্টাইল

কি গিফট কিনবেন তা নিয়ে চিন্তিত?

কি গিফট কিনবেন তা নিয়ে চিন্তিত? neonaloy

উপহার, ভালোলাগার একটা বিষয়।

কারো কাছ থেকে উপহার পেতে যেমন ভালো লাগে তেমন দিতেও ভালো লাগে।

কিন্তু কাউকে উপহার দিতে গেলে শুরু হয়ে যায় নানা রকম সমস্যা, কোনটা উপহার দিব, কি উপহার দিলে ভালো হবে, পছন্দ হবে কিনা এমন শতেক চিন্তা চলে আসে মাথায়।

আবার অনেকেই আছে দায়সারা ভাবে কোনমতে একটা উপহার গছিয়ে দিতে পারলেই হাফ ছেড়ে বসে থাকেন।

কিন্তু এটা আসলে ঠিক নয়, কারণ আপনি কি উপহার দিলেন সেটা সত্যিই মুখ্য বিষয় নয়, বরং মুখ্য বিষয় হচ্ছে আপনি কতটুকু আন্তরিকতার সাথে উপহারটা দিলেন।

আজকে তাই জেনে নিই উপহার দেওয়ার কিছু সাধারণ বিষয় সম্পর্কে।

১) সম্পর্ক বিবেচনায় রাখুন

উপহার দেওয়ার সময় মনে রাখবেন যাকে উপহার দিচ্ছেন তার সাথে আপনার সম্পর্কটা কেমন।

বন্ধুকে ভালোবেসে কিংবা দুষ্টামি করে যে উপহার দেবেন তা নিশ্চয় অফিসের সহকর্মীর জন্য প্রযোজ্য না।

তাই সম্পর্কের ভিত্তিতে উপহার দিন।

২) বয়স বিবেচনায় রাখুন

অনেক বয়স্ক মানুষই একটু হালকা রঙের জিনিস পছন্দ করেন, তবে কেউ কেউ আছেন ব্যতিক্রম। এখন আপনি যদি টকটকে লাল রঙের একটা শাড়ি নিয়ে এসে আপনার বয়স্ক আত্মীয়কে দেন এবং আত্মীয় আপনার দেওয়া শাড়িটা এত চমৎকার হওয়ার পরেও পড়ছেননা ভেবে মন খারাপ করে বসে থাকেন তাহলে তো আর হলো না।

৩) চেষ্টা করবেন সরাসরি টাকা উপহার না দিতে। 

হাতে টাকা দেওয়া অনেক সময় একটা ভুল ধারণা নিয়ে যায় গ্রহণকারীর কাছে।

যাকে দিচ্ছেন তিনি ভাবতেই পারেন যে আপনার উনার জন্য চিন্তা করার সময় নেই বা উনি আপনার কাছে অতটা গুরুত্বপূর্ণ নন তাই আপনি হেলাফেলা করে টাকা দিয়ে দিচ্ছেন উপহার হিসেবে।

আজকাল বিয়ের উপহার হিসেবে গিফট চেক দেওয়ার প্রচলন হয়েছে, ঘনিষ্ঠ বন্ধু-বান্ধব কিংবা ভাই-বোন বা সন্তানদের আমরা টাকা দিয়ে দিই পছন্দমত জিনিস কিনে দেওয়ার জন্য।

তারপরেও, সম্পর্কের ঘনিষ্ঠতার ভিত্তিতেই টাকা উপহার দেওয়ার কথাটা মাথায় রাখুন।

৪) উপহারের মূল্য কোনো বিষয় না

ক্ষুদ্র মন মানসিকতার লোক ছাড়া আমার মনে হয়না অন্য কেউ উপহারের দাম নিয়ে মাথা ঘামায়। তাই আপনি কত টাকা দিয়ে উপহার কিনলেন সেটার চেয়ে বরং যাকে উপহারটা দিচ্ছেন তার কতটুকু হৃদয় ছুঁয়ে যাবে সেটা নিয়েই ভাবুন।

আপনার বাবা ভালোবেসে জীবনের প্রথম যে শাড়িটা বা শার্টটা কিনে উপহার দিয়েছিলেন তার সাথে কি পরবর্তী জীবনে উপহার পাওয়া দামী দামী শাড়ীগুলোর বা শার্টগুলোর তুলনা চলে?

৫) ইচ্ছাগুলোকে প্রাধান্য দিন

প্রিয়জনকে সাথে নিয়ে ঘুরতে বের হয়েছেন কিংবা কোন বিষয় নিয়ে কথা হচ্ছে। খেয়াল করে দেখবেন তিনি হাতে কোনো কিছু নিয়ে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে দেখছেন তবে পছন্দ হলেও দামের জন্য বা অন্য কোন কারণে রেখে দিচ্ছেন সেটা, অথবা আড্ডাচ্ছলে আপনাকে নিজের কোন কিছুর প্রতি ভালো লাগার কথা বলে ফেললেন।

এসব জিনিস মনে করে রাখবেন, যখন উপহার দিতে যাবেন তখন সেগুলোই মাথায় রাখবেন। অনেকদিন আগে খুব করে কিনতে চেয়েও কোন কারণে কিনতে না পারা জিনিস দেখে আপনার প্রিয়জন নিশ্চয়ই খুশি হবেন।

৬) শখ আছে কোন?

কথায় বলে শখের তোলা নাকি আশি টাকা। স্কুল জীবনে আমার এক বন্ধুকে তার প্রিয় লেখকের বই উপহার দিয়ে যে চোখ ছলছল করা আনন্দের ছোঁয়া দেখে আমি নিজেই মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম।

ছবি তুলতে ভালোবাসেন এমন কাউকে ক্যামেরা গিফট দিলেই আনন্দে আটখানা হবেন!

তাই বিশেষ কোন বস্তুর প্রতি আকর্ষণ থাকলে সেটাই উপহার দিন বরং, সেটা হতে পারে গল্পের বই, ডাকটিকেট, ক্রিকেটে ব্যাট বা অন্যকিছু।

৭) “প্রফেশনাল” কাউকে “প্রফেশনাল” কিছু উপহার দিন

উপহার সবসময়ই উপহার হয়, সেটা ঘরে সাজিয়ে রাখলেও যা নিত্যদিন ব্যবহার করলেও তা। তবে আমার মতে “প্রফেশনাল”দের তাদের মতোই উপহার দেওয়া উচিত।

যেমন একজন ডাক্তারকে আপনি তার চিকিৎসা সম্পর্কিত কোন কিছু উপহার দিলেন, কিংবা শিক্ষককে ভালো একসেট “টেক্সট বুক”। আশা করি এমন উপহার তাদের ভালোই কাজে আসবে আর আপনার কথা মনে করিয়ে দেবে সবসময়।

৮) সুন্দর করে উপহারটা দিন

উপহার কিনলাম অনেক ভেবে-চিন্তে, এখন ভালোভাবে প্যাকেট না করে দিয়ে দিলাম বন্ধুকে তার জন্মদিনের উপহার, এটা কি ঠিক হলো?

মনে রাখবেন, উপহার প্যাকেট করার মাধ্যমেও কিন্তু আপনার মনের ভালোলাগাটা এবং অনুভূতিগুলো প্রকাশ পায়।

তাই সুন্দর করে একটা মোড়কে আপনার উপহারটাকে প্যাকেট করে ফেলুন। প্রায় সব দোকানেই অতিরিক্ত কয়েক টাকা দিয়ে উপহার প্যাকেট করিয়ে নেওয়া যায় সুন্দর কোন “গিফট পেপার” দিয়ে। আর যদি নিজের মনের মাধুরী মিশিয়ে উপহার দিতে চান তবে অনলাইন বা ইউটিউব থেকে দেখে সুন্দরভাবে মোড়ক তৈরি করে নিন।

৯) মন ছুঁয়ে যায় এমন কয়েকটা কথা লিখে দিন

ছোট্ট একটা চিরকুট নিন কিংবা কয়েক দিস্তা কাগজ নিন, লিখে ফেলুন নিজের মনের কথাগুলো, নাহয় সুন্দর কিছু শুভ কামনা  পাঠিয়ে দিন প্রিয়জনকে।

১০) কখনোই যেসব করবেননা

অনেকেরই অভ্যাস আছে উপহার যাকে দিয়েছে তাকে বারবার উপহারটা ব্যবহার করছে কিনা, ভালো লেগেছে কিনা এসব জিজ্ঞেস করা।

এমন কথা ভুলেও জিজ্ঞেস করতে যাবেন না, এতে মানুষটি বরং বিরক্তই হবেন খুশি হওয়ার চেয়ে।

নিজে পাওয়া উপহার টাকা বাঁচানোর জন্য অন্যকে দিয়ে দেওয়ারও অভ্যাস থাকে কারো কারো, এমনটা করা কিন্তু উচিত নয়।

কারণ যদি কোন কারণে জানাজানি হয়ে যায় তবে সামান্য কয়েকটা টাকার জন্য লজ্জায় পরে যাবেন কিন্তু।

তবে এসবের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হল আপনি যাকে উপহার দিচ্ছেন তার প্রতি আপনার এবং আপনার প্রতি তার অনুভূতিটা কেমন।

এতগুলো কথা বললাম উপহার নিয়ে, বিনিময়ে ছোট্ট একটা উপহার নাহয় আমাকেও পাঠিয়ে দেবেন কষ্ট করে!

Most Popular

To Top