নাগরিক কথা

মাঝে মাঝে পুরুষ হয়ে বেঁচে থাকতে লজ্জাবোধ করি

মাঝে মাঝে পুরুষ হয়ে বেঁচে থাকতে লজ্জাবোধ করি neonaloy

মানুষের গল্প শুনতে খুব ভাল লাগে! যাপিত জীবনের গল্প। বড় হয়ে ওঠার গল্প। আমি সবসময় বিশ্বাস করি, আমাদের জীবনটা আর কিছু নয়; অসংখ্য গল্পের সমষ্টি।

রাগিব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজের মেয়েরা, যারা পরীক্ষা শেষে নেপালে ফিরে যাচ্ছিল, তাদের একজন বিমানে ওঠার আগে লিখেছে, ‘পরীক্ষা শেষ, আমরা বাড়ি যাচ্ছি।’
এই স্ট্যাটাসটা পড়ার পর বুকের ভেতর কেমন যেন দুমড়ে মুচড়ে ওঠে। মেয়েটা জানতো না ওর আর বাড়ি ফেরা হবে না। ও যদি জানতো, তাহলে কি ভয়ানক ব্যাপারটাই না হয়ে যেতো। আমার ধারণা মানুষ যদি তার মৃত্যুর দিনক্ষণ আগেভাগে জেনে যেত, তারপক্ষে এক মিনিটও বাঁচা অসম্ভব হয়ে যেত।

আরেকজন খুব কাঁচা হাতে ভুলভাল বানানে লিখেছে, ‘আমার জানটা আমাকে রেখে নেপালে যাচ্ছে। যেরকম যাচ্ছো, ওরকম সুস্থ ভাবে ফিরে এসো। তুমিতো জানো আমি তোমাকে খুব মিস করবো।’
কি অদ্ভুত সুন্দর বেঁচে থাকার গল্প! কাছে থাকার আকুতি।

আরেকজন তার ব্যাগেজের হাতলে হাত রেখে লিখেছে, ‘থার্ড হানিমুন, ট্রাভেল, ফান, ব্যাগেজ।’ আহা ভালোবাসা। ভালোবাসা শুধুই জীবনেই সম্ভব। শুধু বেঁচে থাকলে।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে, ‘ইউএস বাংলার প্রথম নারী পাইলট পৃথুলা রশীদ নিহতের খবর’। সেইসব সংবাদের নিচে বহু অশ্লীল কমেন্ট। একজন লিখেছে, ‘এসব নারী ফারীই ডুবাইলো কীনা কে জানে’! আরেকজন লিখেছে, ‘এসব জায়গায় নারী দিলে এই অবস্থাই হবে।’

একটা মেয়ে কতটা অদম্য হলে এরকম একটা ঝুঁকিপূর্ণ পেশাকে বেছে নিতে পারে? কত শত বাধা ডিঙিয়ে তাকে এখানে আসতে হয়েছে। সেই মেয়েটা হয়তো পরিবারের সাপোর্ট পায়নি, অফিসে নানা বাঁধা ছিল, এসব পেরিয়ে যখন একটা অসামান্য অর্জন ছিনিয়ে আনলো; বীরের মতো মৃত্যুর পরেও তাকে ‘নারী’ অপবাদে অভিযুক্ত হতে হয়! আর কি করলে কেউ নারী থেকে একজন মানুষে উন্নীত হবে এই পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায়? শীত কালের ওয়ায়েজিন থেকে, শিক্ষিত যুবক, প্যান্ট শার্ট পরা ভদ্রলোক- নারীতে এদের এতো অনাসক্তি কেনো কেউ কি বলতে পারেন?

পৃথুলা, আপনাকে শ্রদ্ধা! নত হই। সম্মান জানাই। আপনার প্রেরণায় উজ্জীবিত হোক আরও শত নারী। বিশ্বাস করি, আপনাকে ভালোবাসার মতো মানুষের সংখ্যাই বেশি।

মাঝে মাঝে পুরুষ হয়ে বেঁচে থাকতে লজ্জাবোধ করি।

লেখকঃ রাজু নুরুল, টেকনিক্যাল প্রোগ্রাম ডিরেক্টর, ওয়ার্ল্ড ভিশন

Most Popular

To Top