নাগরিক কথা

“আমি নিজেই জাফর ইকবালকে ছুরি মারতাম”

"আমি নিজেই জাফর ইকবালকে ছুরি মারতাম"

জাফর স্যার যদি আজকে ছুরিকাঘাতে ক্ষতবিক্ষত না হতেন, তবে আমি নিজেই তাকে কিছুদিনের মধ্যেই ছুরি মারতাম। তবে আমার আঘাত হত আরও পরিষ্কার। এমন নবিশের মত না, ঠাণ্ডা মাথায় সঠিক স্থানে এক আঘাতেই সব শেষ। তার পাহাড়প্রমাণ ব্যক্তিত্বের সামনে বিচিহীনতার কারণে এতদিন কিছু করতে পারিনি, কিন্তু যেকোন দিন লাশ ফেলে দিতাম।

আমি জামাতি। এই নাস্তিক মুরতাদ বছরের পর বছর ঝামেলা করেছে। মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে মুখে, কলমে ফেনা তুলে গেছে। রীতিমত একটা পথভ্রষ্ট প্রজন্ম তৈরি করে ফেলেছে। ষড়যন্ত্রের ফলে ভাগ হওয়া আমাদের পাকিস্তানকে শত্রু বানিয়ে দিয়েছে এই অন্ধ প্রজন্মের কাছে। এসব ফালতু চেতনা দিয়ে ওরা গণজাগরণ মঞ্চ করেছে, আমাদের বাবাদের ফাঁসিতে ঝুলিয়েছে। আমি কি শুধু গালাগাল দিয়েই থেমে যেতাম? না, দায়িত্ব পালন করতাম।

আমি আওয়ামীলীগ। এই দুর্গন্ধময় সুশীল লোকটা সরকারের সমালোচনা করে। প্রশ্ন ফাঁস, শিক্ষাব্যবস্থা এসব নিয়ে শুধু সবসময় ঘ্যানঘ্যান করে- তাই না, আমাদের মাননীয় মন্ত্রী, নেতাদের নিয়েও প্রায়ই যা-তা বলে। পলিটিক্সের কিছু না বুঝেই চেঁচামেচি করে সরকার নাকি বিভিন্ন বিষয়ে ব্যর্থ। চুনোপুঁটির এই তড়পানোর উপযুক্ত জবাব কি দিতাম না? নিশ্চয়ই দিতাম।

আমি স্বঘোষিত নিরপেক্ষ। এই লোকদেখানো বুদ্ধিজীবী নিজের সুবিধামত কথাবার্তা বলে। সারাদিন চেতনা বেচে ঘুরে বেড়ায়। কোথায় থাকে সে যখন দেশে এই হয়, সেই হয়? সে কেন হ্যানত্যান নিয়ে কথা বলে না? সব ফেমসিকিং আর সূক্ষ্ম চাটুকারিতা। এদের মত মানুষের জন্য দরকার ভয়ানক পরিণতি। আর সবাই হাত গুটিয়ে বসে থাকলেও আমি থাকতাম না।

আমি অনুভূতিময় মৌলবাদী মুসলমান। এই লোক অবশ্যই ইসলামবিদ্বেষী। নাহলে নাস্তিক ব্লগার হত্যা নিয়ে তার এত জ্বলে কেন? কোরআন হাদিসের কোন কিছুও তো কখনো শুনিনি তার মুখে। জিহাদ আর মৌলবাদ নিয়ে এত কথা না বলে সারা জাহানের মুসলমানদের উপর যে অত্যাচার আর ষড়যন্ত্র হচ্ছে সেসবও তো সে বলতে পারে। নিজে মুসলমানের বাচ্চা হয়ে সারাদিন মেয়েদের সাথে ছবি তোলা, নাচানাচি করার পরিণাম তাকে আমি নিজ দায়িত্বে দেখিয়ে দিতাম।

আমি সচেতন সিলেটবাসী। সিলেটের খেয়ে সিলেটের পরে, সিলেটের সাথেই বেঈমানি করে সে। তাকে এবং তার ছাত্রদের দফায় দফায় সাবধান করার পরেও তাদের আস্ফালন কমে না। আমি শুধু তাকে না, তার ভার্সিটিও গুঁড়িয়ে দিয়ে আসতাম।

আমি আরও অনেক কিছু। আমি ভর্তি বাণিজ্যিক শিক্ষক, আমি হিংসাপরায়ণ অনলাইন-অফলাইন সেলিব্রিটি, আমি বামাতি। আমি আমীর-কুমির-বিপ্লবী-হেফাজতি। আমি লাল-নীল-হলুদ।

তাঁর অনেক দোষ। তিনি পড়ান, স্বপ্ন দেখান, উৎসাহ দেন। তিনি শেখান, খাটেন, আগলে রাখেন। তিনি প্রতিবাদ করেন, সাহস দেন, চিন্তা করেন, চিন্তা করার খোরাক দেন।

এসব আমি মেনে নেই না। আমি ছুরিকাঘাত করি।

লিখেছেনঃ আহমেদ বিন জামান

আরো পড়ুনঃ
আসুন, একটু লজ্জিত হই…
এরপর কে হবেন ‘টার্গেট’?
যেভাবে হামলা হলো মুহাম্মদ জাফর ইকবালের উপরঃ প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান
এই হামলা কি অবাক হওয়ার মত কিছু?

Most Popular

To Top