ফ্লাডলাইট

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

টেস্ট ক্রিকেটের সর্বোচ্চ চূড়া বলতে মানুষ সাধারনত “এশেজ”-কেই বুঝে থাকে। কিন্তু কয়েক বছর ধরে একপেশে এশেজের কারনে অনেকটা রং হারিয়েছে এই সিরিজ। তাছাড়া এশেজ বলতে আমি বুঝি আক্রমনাত্বক ফাস্ট বোলিং বনাম সুইং নির্ভর মিডিয়াম ফাস্ট বোলিং-এর লড়াই বা আক্রমনাত্বক ক্রিকেট বনাম রক্ষনাত্বক ক্রিকেট।

কিন্তু যদি সত্যিকারের গতির লড়াই বলেন তাহলে অস্ট্রেলিয়া-সাউথ আফ্রিকা টেস্ট সিরিজ সবার উপরে থাকবে। গতিতে বিপর্যস্ত ব্যাটসম্যানদের অসহায় দর্শন মিলবে এই দুই দলের লড়াইয়েই।

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

ডারবানে ১ মার্চ থেকে শুরু হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী এই টেস্ট সিরিজ। শুনতে অবাক লাগলেও এটিই সম্ভবত সাউথ আফ্রিকার সুপারস্টারদের শেষ “বড় সিরিজ”। বড় সিরিজ বলতে অবশ্যই বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, সাউথ আফ্রিকা, ভারতের ভেতর টেস্ট সিরিজকে বুঝানো হচ্ছে। ২০১৯ বিশ্বকাপের আগে সাউথ আফ্রিকার টেস্ট সিরিজগুলা হচ্ছে শ্রীলংকা সফর, শ্রীলংকার বিপক্ষে হোম সিরিজ আর পাকিস্তানের বিপক্ষে হোম সিরিজ। এরপর তারা ব্যস্ত থাকবে সাদা বলের ক্রিকেটে। আর বিশ্বকাপের পর নতুন এফটিপি হবে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপ অনুযায়ী। সেই অর্থে হাশিম আমলা, এবি ডি ভিলিয়ার্স, ফাফ ডুপ্লেসিস, ডেল স্টেইন, মরনে মরকেল, ভেরনন ফিলান্ডার সবারই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সাম্ভাব্য শেষ টেস্ট সিরিজ এটাই। সম্ভবত ক্যারিয়ারের শেষ “বিগ সিরিজ”।

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

এ বি ডি ভিলিয়ার্স

এবি ডি ভিলিয়ার্স, টেস্ট ক্রিকেট থেকে স্বেচ্ছায় দূরে ছিলেন অনেকদিন। নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ড এবং ঘরের মাঠে বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজেও খেলেননি। বরাবরই বলেছেন ২০১৯ বিশ্বকাপই তার মূল লক্ষ্য ক্যারিয়ারের এই পর্যায়ে এসে। সাদা পোশাকে ফেরার সময় বলেছিলেন ভারত আর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আটটি টেস্ট নিয়েই আপাতত তার টেস্ট পরিকল্পনা। ভারতের বিপক্ষে একটা টেস্ট কম হওয়ায় খেলেছিলেন জিম্বাবুয়ের সাথে প্রথম চারদিনের টেস্টে। ঘরের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ জয়ের প্রত্যয়ে “মিটিভেটেড” ডি ভিলিয়ার্সের টেস্ট ক্যারিয়ারের ইতি টানার সমূহ সম্ভাবনা এই সিরিজ শেষেই। বিশ্বকাপের পর অবসরের ইঙ্গিত দেয়া এবিডিভি বাকি সময়টা পার করবেন সাদা বলের ক্রিকেটেই। সাউথ আফ্রিকার বাকি তিন টেস্ট সিরিজে যদি খেলেও ফেলেন তবুও এটাই তার ক্যারিয়ারের শেষ অস্ট্রেলিয়া সিরিজ। এবিডিভি মিডিয়ায় বলেছেন-

My focus is on the 2019 WC but if I feel physically incapable of making it after those two test series (India and Australia), I will call it a day then. I’ll make that call once we get there.

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

ফাফ ডু প্লেসিস

ফাফ ডু প্লেসিস, সাউথ আফ্রিকার অধিনায়ক আগেই জানিয়েছেন বিশ্বকাপের পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিবেন। সেই বিবেচনায় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এটাই তার শেষ সিরিজ। শেষ বিগ সিরিজ অবশ্যই। ফাফ নিশ্চয় চাইবেন ঘরের মাটিতে অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর অপূর্ণতা দূর করতে। বিশ্বকাপের পরে আগামী বছর পুরাটা যদি খেলেও ফেলেন তবুও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আর সাদা পোশাকে মাঠে নামা হচ্ছেনা ফাফের।

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

মরনে মরকেল

মরনে মরকেল অবশ্য এই সিরিজ শেষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষনা দিয়েই দিয়েছেন। সাউথ আফ্রিকার ইতিহাসের পঞ্চম সর্বোচ্চ উইকেট শিকার করা এই সুপারস্টার লম্বা সময় ধরে দলকে সার্ভিস দিয়েছেন। স্টেইন, ফিলান্ডারের ইনজুরিতে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন পেস আক্রমনের। কিন্তু ক্যারিয়ার থ্রেটেনিং এক ব্যাক ইনজুরিতে অনেকদিন বাইরে ছিলেন দলের। নিজের ভবিষ্যৎ হয়তো আরেকটু লম্বা করার জন্যেই কোচ অটিস গিবসনকে জিজ্ঞেস করেছিলেন বিশ্বকাপের দলে তার থাকার সম্ভাবনা কতখানি? গিবসন জানিয়েছেন, বাকি সবার মতোই পারফর্মেন্স বেজড। ফর্মে থাকলে সুযোগ হবে। কিন্তু অপেক্ষায় না থেকে মরকেল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন অবসরের। বাতাসে গুঞ্জন আছে ইয়র্কশায়ারের সাথে কলপ্যাক চুক্তিতে যাচ্ছেন মরকেল। মরকেলের বাবাই দিয়েছেন ইঙ্গিত, “আমার ছেলের ভবিষ্যতের নিরাপত্তার দরকার আছে”। মরকেল নিজে বলেছেন, “আমার একটি তরুন পরিবার এবং বিদেশি স্ত্রী আছে, আমার ভেতর এখনো দুই তিন মৌসুম ক্রিকেট খেলার মতো অবস্থা আছে কিন্তু আমার আরো কিছু লক্ষ্য আছে ক্যারিয়ারে”। উল্লেখ্য গতবছর ইংল্যান্ড সফরের সময় অন্তত তিনটি কাউন্টির পক্ষ থেকে কলপ্যাকের অফার পেয়েছিলেন মরকেল। শেষ টেস্ট সিরিজে নিজের সর্বোচ্চ সেরাটা দিয়েই অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে চাইবেন মরকেল এটাই প্রত্যাশা সাউথ আফ্রিকা দলের বাকি সদস্যদের। সিরিজ শেষেই হয়তো আসবে কলপ্যাকের ঘোষনা। ৩৩ বছর বয়সী মরকেল ক্যারিয়ারের শেষ দুই বা তিন বছর কাউন্টি আর ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টুয়েন্টি লীগ খেলেই কাটাবেন বলে ধারনা আফ্রিকান মিডিয়ার।

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

হাশিম আমলা

ক্ল্যাসিক ক্রিকেটের আদর্শ উদাহরন হাশিম আমলা, সাউথ আফ্রিকান মিডিয়ার ধারনা ২০১৯ বিশ্বকাপের পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন এই শ্রদ্ধাভাজন ক্রিকেটার। সেই অর্থে আমলাও শেষবার মুখোমুখি হচ্ছেন অস্ট্রেলিয়া দলের। সাম্প্রতিক সময়ে ঠিক নামের প্রতি সুবিচার করতে পারছেন না। হতেপারে ক্যারিয়ারের লাস্ট “বড় সিরিজে” ব্যাট হাতে ছোটাবেন রানের ফোয়ারা। স্টিভ স্মিথ বনাম হাশিম আমলা, ধ্রুপদী ক্ল্যাসিক ব্যাটিং-এর অনুপম প্রদর্শনীর দেখা মিলবে আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া সানোফিল টেস্ট সিরিজে।

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

ধারণা করা হয় এটিই ডেল স্টেইনের শেষ সিরিজ!

ডেল স্টেইন ইনজুরি কাটিয়ে ফিরতে ফিরতে সিরিজের তৃতীয় টেস্ট! বারবার ইনজুরিতে বাধাগ্রস্ত এই ক্যারিয়ার স্টেইন হয়তো বিশ্বকাপের পর আর লম্বা করতে চাইবেন না। এই ধারনা ক্রিকেটের সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ক্রিকইনফোর। আবারো বড় কোন ইনজুরিতে পড়লে হয়তো আরো আগেই অবসর নিয়ে নিবেন স্টেইন গান! সাউথ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ টেস্ট উইকেট শিকার করতে আর মাত্র তিন উইকেট লাগবে স্টেইনের। ধারনা করা যায় এটাই অজিদের বিপক্ষে তার শেষ এসাইনমেন্ট।

তবে কি এটাই সাউথ আফ্রিকার বিগস্টারদের শেষ বিগ সিরিজ?

ভেরনন ফিলেন্ডার

ইনজুরির সমস্যা ভোগাচ্ছে ৩৩ বছর বয়সী ভেরনন ফিলান্ডারকেও। ইনজুরির সাথে লড়াই করে আরো তিন বছর টেস্ট ক্রিকেট খেলাটা হয়তো কঠিনই হবে ফিলান্ডারের জন্য। সেক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এটাই শেষ টেস্ট সিরিজ হতে যাচ্ছে তার। সম্ভবত লাস্ট বিগ সিরিজ।

সাউথ আফ্রিকা-অস্ট্রেলিয়ার চলমান চার টেস্টের সিরিজের পর এই দুই দলের পরবর্তী সিরিজ ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে অর্থাৎ প্রায় তিন বছর পর!

প্রায় তিন বছর পর হাশিম আমলা, এবি ডি ভিলিয়ার্স, ফাফ ডু প্লেসিস, ডেল স্টেইন, ভেরনন ফিলান্ডার কারোরই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে থাকার সম্ভাবনা খুব বেশিনা, থাকবেন না বলাই হয়তো সঠিক। আর মরনে মরকেল যে থাকবেনা সেটাতো নিশ্চিত অবসর নেয়ায়।

এর সাথে যোগ হয়েছে বর্তমানের ফ্রাঞ্চাইজি ভিত্তিক টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটের আকর্ষন। অন্তত দুই বা তিন বছর ক্রিকেট অবশিষ্ট থাকতেই অবসরে যাচ্ছেন তারকা ক্রিকেটাররা। কুমার সাঙ্গাকারা, ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, লুক রঙ্কিরা সেটা করে দেখিয়েছিন।

নিয়ম অনুযায়ী আফ্রিকান এবং ক্যারিবিয়ানরা আবার কলপ্যাক চুক্তিবদ্ধ হতে পারেন! কাইল এব্যট, রাইলি রোশুর পর মরনে মরকেল হয়তো সেই সুযোগই নিতে যাচ্ছেন!

সব মিলিয়ে এতো গুলা তারকা ক্রিকেটারের শেষ “বিগ সিরিজ” হয়ে যাওয়ার ফলে আলাদা রং পাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া-সাউথ আফ্রিকার এই সিরিজ। ঐতিহাসিক রং আছে, আছে একের ঘরে অন্যের জয়ের ইতিহাস! কিন্তু নিজের মাটিতে অজিদের হারাতে এবার বদ্ধপরিকর সাউথ আফ্রিকা।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়াও আছে দারুন ছন্দে। আর পেস আক্রমনের দিক থেকে কিছুটা এগিয়েই থাকবে অস্ট্রেলিয়া।

এই সিরিজের ফলাফল কি হবে আগে থেকে ধারনা করা কঠিন। চার টেস্টের সিরিজ, ভালো হয় সমান সমান ড্র হলে!

ফলাফল যাইহোক, গতির লড়াই উপভোগ করতে আর তর সইছে না!

Most Popular

To Top