টুকিটাকি

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?- নিয়ন আলোয়

এই পৃথিবীর বাইরে যে কিছু একটা আছে, সেই ধারণাটাই জন্ম নিতে কিন্তু মানুষের অনেক অনেক সময় লেগেছে। ধারণা হওয়ার পর থেকেই মানুষ সবসময় কৌতুহলী ছিল- পৃথিবীর বাইরে কি আমাদের মত কোন বুদ্ধিমান প্রাণী আছে? বা আদৌ কি কোন প্রাণী আছে? এই প্রশ্নের উত্তর সম্পর্কে আজও নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়নি। তবে, ইতিহাসে এমন কিছু অদ্ভুদ ঘটনা ঘটেছে, যাতে ধারণা জন্মে এলিয়েন বা এক্সট্রা-টেরেস্ট্রিয়াল প্রাণীর অস্তিত্ব যে শধু আছে তাই না, তারা পৃথিবীতে এসে ঘুরেও গেছে দিব্যি!

চলুন দেখে নেয়া যাক এমন কিছু “প্রমাণ”!

১) ভৌতিক উড়োজাহাজ (১৮৮০)

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?- নিয়ন আলোয়

১৮৮০ সালের ২৬ শে মার্চ, নিউ ম্যাক্সিকোর ছোট একটা শহর, গ্যালিস্তিও জাংশনের আকাশে দেখা চাকতির মত একধরনের আকাশযান, যাকে ইউএফও (U.F.O বা Unidentified Flying Soccer) বলে সন্দেহ করা হয়। ১৮৯৬ সালের ১৮ নভেম্বর কর্নেল এইচ জি শ একই ধরনের চাকতির মত আকাশযান ক্যালিফোর্নিয়ায় ল্যান্ড করতে দেখেন বলে দাবী করেন। সেই আকাশযানের ব্যাস ছিল ২৫ ফিট, দৈর্ঘ্য ছিল ১৫০ ফিট।

২) অলৌকিক যোদ্ধা (The Foo Fighters)

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?- নিয়ন আলোয়

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষদিকে যুদ্ধবিমানের অনেক চালক এক অদ্ভুদ অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হন। অফিসিয়ালি রিপোর্ট আসা শুরু হয় ১৯৪৪ সালের নটলভেম্বর মাস থেকে। পাইলটেরা বলেন, তারা ভিন্ন ভিন্ন রঙয়ের কিন্তু একই ধরনের আকাশযান আকাশে উড়তে দেখেন, যার সাথে তৎকালীন যুদ্ধবিমানগুলোর কোন মিল নেই। তারা আতংকিত হয়ে আকাশযানগুলো লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করেন, কিন্তু সেগুলোর কোন ক্ষতি করতে ব্যর্থ হন! জাপানিজ এবং জার্মানরা এগুলোকে শত্রুপক্ষের বিমান বলে রিপোর্ট করে।

মিশন ব্রিফিংয়ের সময় জার্মান গোয়েন্দা অফিসার এদের Foo Fighters বলে উল্ল্যেখ করেন, যা পরবর্তীতে এই নামেই পরিচিতি লাভ করে।

৩) মাউরী দ্বীপের রহস্য

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?- নিয়ন আলোয়

ওয়াশিংটন ডিসির টাকোমার কাছে ছোট একটি দ্বীপ মাউরী আইল্যান্ড। ১৯৪৭ সালের ২১ শে জু্ন হ্যারল্ড এ ডাল নামক একজন নাবিক কেবল যে তাদের দেখা পান তা নয়, রীতিমত ভয়াবহভাবে আক্রান্ত হন। এফবিআই এর নিকট করা রিপোর্ট হ্যারল্ড, তার ছেলে এবং আরেকজন ব্যক্তি তাদের পোষা কুকুরটিকে নিয়ে (নাম জানা জায়নি) ইঞ্জিঞ্চালিত নৌকায় করে পানিতে নেমেছিলেন। এক পর্যায়ে তারা আকাশে ডোনাটের মত দেখতে কয়েকটি যান দেখেন। যানগুলি একসময় তাদের দিকে এক ধরনের ধাতব টুকরো নিক্ষেপ করে। এতে তার ছেলে আহত হয় এবং কুকুরটি মারা যায়। অবশ্য, হ্যারল্ডের এই জবানবন্দী নিয়ে পরবর্তীতে অনেক বিতর্ক সৃষ্টি হয়।

৪) প্রাচীন শিল্পকলা

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?- নিয়ন আলোয়

নিচের ছবিগুলো ভালো করে লক্ষ্য করুন। কোন ছবিতে কিছুটা মানুষের মত দেখতে অদ্ভুদ চেহারার কিছু প্রাণী, কোন ছবিতে আবার দেখা যাচ্ছে উড়ন্ত চাকতির মত বস্তু। ছবিগুলো কয়েক হাজার বছরের পুরোনো, কয়েকটি আবার গুহাচিত্র। এগুলো কি প্রমাণ করে আধুনিক সভ্যতার অনেক আগেই মানুষের সাথে কোনভাবে পরিচয় হয়েছিল ভীনগ্রহের প্রাণীদের?

৫) “উধাও” কাহিনী

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?- নিয়ন আলোয়

১৯৭৩ সালের ১৫ অক্টোবর চার্লস হিকসন এবং কেভিন পার্কার নামে দুইজন ব্যক্তি মাছ ধরতে যান মিসিসিপির Pascagoula নদীতে। হঠাৎ শুন্য থেকে উদয় হল অদ্ভুদ দর্শন ৮ ফুট লম্বা এবং ৮ ফুট লম্বা একটি উড়োযান। তারপর বেশ কয়েকজন সাক্ষীর সামনেই শুন্যে টেনে নিয়ে গেল তাদের দুজনকে! সাক্ষীদের কথার সত্য-মিথ্যা যাচাইয়ের আর কোন উপায় নেই, তবে একথা সত্য তাদের দুজনকে সেদিনের পর আর খুঁজে পাওয়া যায়নি।

৬) চাইনিজ মিলিটারির ইউএফও দর্শন

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?- নিয়ন আলোয়

১৯৯৮ সালের ১৯ অক্টোবর, চীনের হেবেই প্রদেশের চারটি রাডার স্টেশন আকাশে রহস্যজনক একটি উড়ন্ত বস্তু শনাক্ত করে। বস্তুটি ধীরে ধীরে নিচে নামতে শুরু করলে বেইজ কমান্ডার কর্নেল লি একটি বিমানকে ব্যাপারটি পর্যবেক্ষণ করে আসতে নির্দেশ দেন। মিলিটারি বেইজের বিমানটি “অজ্ঞাত” উড়ন্ত বস্তুর কআছে যাওয়ার চেষ্টা করলে সেটি অসম্ভব দ্রুতবেগে শুন্যে উঠে বিমানের রেইঞ্জের বাইরে বেরিয়ে যায়।

৭) রুপালি যান

১৯৭৩ সালের ১০ অক্টোবর, দুজন পুলিশ অফিসার সহ ১৫ জন ব্যাক্তি নিউ অরলিন্স, লুসিয়ানার আকাশে একটি বিশাল রুপালি যান ভেসে থাকতে দেখার দাবি করেন। এই ঘটনার ঠিক দুই বছর পর, ট্রাভিস ওয়াল্টন নামের এক ব্যাক্তি ও তার ছয় সহকর্মী নিখোঁজ হন। পাঁচ দিন পর তাদের অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এদের প্রত্যেকেই জ্ঞান হারানোর পুরবে সেই রুপালি যানটি দেখার কথা উল্লেখ করে। এই সাত ব্যাক্তিকেই ঘটনার পর অসংখ্য মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও পলিগ্রাফ টেস্টের সম্মুখীন হতে হয়েছে, যার ফলাফল কখনোই প্রকাশ পায়নি।

৮) গোপন নথিতে এলিয়েন

তবে কি আসলেই এলিয়েন আছে?- নিয়ন আলোয়

কানাডার প্রাক্তন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী পল হেলিয়ার ১৯৯৫ সালে দাবি করেন পৃথিবীর শীর্ষ স্থানীয় নেতারা এলিয়েনদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখেন। ২০১৭ সালে তিনি তাঁর দাবি পুনরায় সামনে নিয়ে আসেন। তিনি দাবি করেন রাশিয়া ও আমেরিকার মাঝে স্নায়ু যুদ্ধের সময় অন্তত ৫০ টি এলিয়েন যান রাশিয়ার উপর অবস্থান করার গোপন নথি উভয় সরকারের কাছে রয়েছে। তিনি আরও দাবি করেন যে আমেরিকান ও রাশিয়ান সরকারের সম্মিলিত এক তদন্তে অন্তত ৪টি ভিন্ন এলিয়েন প্রজাতির আগমনের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

উপরের ঘটনাগুলো প্রমাণ করতে পারে না যে এলিয়েনরা আসলেই পৃথিবীতে এসেছিল। কিন্তু, অন্তত এটুকু আমাদের মনে ঢুকিয়ে দিতে পারে যে, তারা আসলেও আসতে পারে, সম্ভাবনা একেবারে উড়িয়ে দেয়ার মত না!

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top