ফ্লাডলাইট

নিদাহাস ট্রফিতে ভারত

নিদাহাস ট্রফি

বিষয়টা প্রত্যাশিত ছিলো। লম্বা সাউথ আফ্রিকা সফর শেষে কিছু প্লেয়ারকে বিশ্রাম দিবে ভারত। ভারতের জন্য এটা নতুন কিছু নয়। শ্রীলংকার সাথে গত বছর খেলা টি-টুয়েন্টি সিরিজ দেখেও বিষয়টা আইডিয়া করেছিলাম। এই সিরিজে ভারতের সম্ভাবনা কতটুকু সেটাই দেখার চেষ্টা করবো।

ভারতের স্কোয়াডে নেই কোহলি, ধোনী, বুমরা, ভুবেনেশ্বর কুমার, কুলদেব যাদবরা। ভারতের স্কোয়াড এরকমঃ

১) রোহিত শর্মা (অধিনায়ক)
২) শিখর ধাওয়ান (সহ-অধিনায়ক)
৩) কে এল রাহুল
৪) সুরেশ রায়না
৫) মানিশ পান্ডে
৬) দিনেশ কার্তিক
৭) দীপক হুদা
৮) ওয়াশিংটন সুন্দর
৯) যুভেন্দ্রা চাহাল
১০) অক্ষর প্যাটেল
১১) বিজয় শংকর
১২) শার্দুল ঠাকুর
১৩) জয়দেব উনাদকাত
১৪) মোহাম্মদ সিরাজ
১৫) রিশব পান্ত

এই স্কোয়াড নিয়ে আপনাদের মতামত জানতে চাই। মানে এই স্কোয়াড নিয়ে ভারত কি নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে যেতে পারবে?

আমার মতামত হচ্ছে, টুর্নামেন্ট বিবেচনায় ভারতের এই স্কোয়াড পূর্ন শক্তির দল না হলেও কোনভাবেই “দূর্বল” দল নয়। ভারতের ব্যাটিং অর্ডারের দিকে যদি তাকাই তাহলে দূর্বল ভাবার কোন কারণ নাই। কে এল রাহুল টি-টুয়েন্টি ফরম্যাটে ভালো প্লেয়ার। রোহিত, ধাওয়ান, রায়না, মানিশ পান্ডে সাউথ আফ্রিকায় কোন না কোন ফরম্যাটে রান পেয়েছেন। রায়না, রাহুল, কার্তিকদের জন্য দলে পজিশন ফিক্সড করার একটা সুযোগ। মানিশ পান্ডেও চাইবে জায়গা ধরে রাখতে আরো ভালো করে। রিশব পান্তের যথেষ্ঠ নামডাক শুনেছিলাম আইপিএল শেষে, কিন্তু জাতীয় দলে সংক্ষিপ্ত সুযোগ যেটুকু পেয়েছেন তেমন কিছু করতে দেখিনি ব্যাট হাতে! এবার নিশ্চয়ই সুযোগ পেলে ভারতের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন।

স্পিন বিভাগে অক্ষর প্যাটেল আছে। অক্ষরকে আমার কখনোই খারাপ স্পিনার মনে হয় না। কিন্তু ভারতের এতো ভালো ভালো স্পিনার যে স্কোয়াডে থাকাই কঠিন, সেখানে একাদশ তো অনেক পরের কথা! অক্ষর বাংলাদেশের সাথে আগেও ভালো করেছে। রান দিলেও উইকেট পেয়েছে দরকারের সময়। ওয়াশিংটন সুন্দরের বলে বেশ নিয়ন্ত্রন আছে। সুযোগ আছে নিজেকে প্রমাণ করার। আর চাহালের কথা বলার কিছু নাই, সাম্প্রতিক সময়ে আকাশে ভাসছেন! তিন ধরনের তিনজন স্পিনার রেখেছে স্কোয়াডে।

পেস বোলিং বিভাগ কিছুটা অনভিজ্ঞ, এটা মানতে হবে। তবে শার্দুল ঠাকুর সাউথ আফ্রিকায় ভালো বল করেছে। যারাই সুযোগ পেয়েছে তারা নিশ্চয়ই নিজেদের উজাড় করে দিবে।

একটা কথা আমি বলবো, ভারতের এই দলের সাথেও বাংলাদেশের জিততে হলে সর্বোচ্চ সেরা খেলা দিতে হবে। ভারতের স্কোয়াডে যারাই আছে, অভিজ্ঞ বা অনভিজ্ঞ সবাই কিন্তু প্রচুর টি-টুয়েন্টি খেলে। আইপিএল ছাড়াও তাদের ঘরোয়া টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্ট আছে। প্রচুর টি-টুয়েন্টি খেলার কারণে তাদের সবারই সামর্থ্য আছে ম্যাচ জেতানো পারফর্মেন্স করার।

আর নতুনরা সব সময়েই চায় দলে এসে বিশেষ কিছু করে দেখানোর। আর নতুনদের বিপক্ষে গেমপ্ল্যান করাও কিছুটা কঠিন। আর আমাদের গেমপ্ল্যান এমনিতেই দূর্বল। টিমের ভেতরের অবস্থাও বিশেষ সুবিধার না। এলোমেলো লাগছে টিম বাংলাদেশকে। যেন একটা ছন্দপতন ঘটেছে।

আমার কাছে নিদাহাস ট্রফিতে ভারতই ফেভারিট, তাদেরই এগিয়ে রাখলাম। তারপর রাখবো শ্রীলংকাকে। হোম টিম। বাংলাদেশের অবস্থান একেবারে শেষে।

ভালো কিছু করতে হলে Extra Ordinary কিছু করতে হবে বাংলাদেশকে।

আমার ব্যক্তিগত মত, ভারত-শ্রীলংকা ফাইনাল খেলবে। সর্বশেষ সিরিজের পর শ্রীলংকাকে বাংলাদেশের চেয়ে বেটার টিম বলেই মেনে নিচ্ছি আমি এই মুহুর্তে।

Most Popular

To Top