নিসর্গ

যাদুকাটা নদীর তীরে জয়নাল আবেদীনের শখের শিমুল বাগান

যাদুকাটা নদীর তীরে জয়নাল আবেদীনের শখের শিমুল বাগান- নিয়ন আলোয়

সুনামগঞ্জের লাউয়েরগড়ে জয়নাল আবেদীন গড়ে তুলেছেন এই বিশাল শিমুল বাগান। প্রকৃতি আর মানব কল্পনার এক অপরূপ মেলবন্ধন। কোলাহলমুক্ত এক নৈসর্গিক স্থান। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেল আজ থেকে এক যুগেরও বেশি সময় আগে প্রায় ১০০ বিঘা জায়গা জুড়ে শখের বসে দুই হাজারের বেশী শিমুল গাছের বাগান গড়েছেন এই ব্যবসায়ী।

সম্প্রতি সেখানে গড়ে তোলা হয়েছে লেবু বাগান। লেবু বাগান কার্যতঃ শিমুল বাগানকে দু’খণ্ডে ভাগ করেছে। বাগানের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে অপরূপ যাদুকাটা নদী।

ওপারে ভারতের মেঘালয় রাজ্য আর আকাশচুম্বী পাহাড়ের সারি।

লোকেশন: লাউয়েরগড়, তাহিরপুর উপজেলা, সুনামগঞ্জ।

খরচ: আমরা গিয়েছি সিলেট শহর থকে। সিলেট থেকে রাউন্ড ট্রিপ খরচ পড়েছে ৫০০ টাকা পার হেড, লাউয়েরগড় বাজারে মুরগী-মাছ দিয়ে ভাতসহ!

যাওয়া: সিলেটের কুমারগাঁও বাসস্ট্যান্ড (শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অদূরে বাসস্ট্যান্ড এর অবস্থান) থেকে সিলেট-সুনামগঞ্জ বাস ভাড়া ৯০ টাকা, এরপর সুনামগঞ্জ থেকে সুনামগঞ্জ-লাউয়েরগড় লেগুনা/মোটরসাইকেল ভাড়া পার হেড ১০০ টাকা, নদী পার হতে নৌকা ভাড়া ৫ টাকা। মোট ১৯৫ টাকা! সময় লেগেছে ৩ ঘন্টার মত। ফিরতেও সেম। It’s that simple.

ফুলের স্থায়ীত্ব: ফুলের স্থায়ীত্ব মাত্র ১ মাস! বসন্তের শুরুতে ফুল ফোটে, তারপর বেশ দ্রুতই ঝরে যায়। অর্থাৎ কেবল ফাগুন মাসেই আগুন ঝরে শিমুলের ডালে।

সতর্কতা: প্রচুর ধুলো ছিল রাস্তায়, ফার্মেসি থেকে মাস্ক কিনে নিতে হয়েছিলো। আসল ঘটনা হল সুনামগঞ্জ টু লাউয়েরগড় রাস্তার উন্নয়ন কাজ চলছে। দুই-একদিনের মধ্যে যারা যাবেন, তারা সম্ভবত ভাগ্যবান। কারণ প্রচুর বৃষ্টি হয়েছে গত রাতে।

বোনাস: খুব কাছেই আছে বারেক টিলা ও লাইমস্টোন লেক। একই ট্রিপে কাভার করা যাবে।

টিপস ১: আমরা নৌকা পার হয়েছি শিমুল বনের ঠিক বিপরীত দিকে, ফলে হাঁটতে হয়নি বেশি একটা।

টিপস ২: উপর থেকে শিমুল বনের যে ছবিগুলো দেখেন, সেটি আসলে একটা পানির ট্যাংক থেকে তোলা হয় যার অবস্থান শিমুল বাগানের ভেতরেই।

টিপস ৩: লাউয়েরগড় বাজার থেকে ২০ টাকা কেজিতে সুস্বাদু দেশী বরই কিনেছি আমরা।

টিপস ৪: খাবার নিয়ে যাবেন। বনের কাছাকাছি কোন দেকান চোখে পড়েনি।

অনুরোধ: যেখানেই যান, পরিবেশ নোংরা করবেন না। সাথে থাকা প্লাস্টিকের ব্যাগ, চিপসের প্যাকেট, পানির বোতল ইত্যাদি বর্জ্য যেখানে সেখানে না ফেলে সাথে করে নিয়ে আসুন।

অনুমতি: মনে রাখবেন, এই বাগান ব্যক্তিমালিকানাধীন। তবে বাগানে প্রবেশের সময় কারো বিশেষ অনুমতি নিতে হয় না (অন্তত আমাদের ক্ষেত্রে নিতে হয়নি)।

প্রথমবার গিয়ে মনে হয়ছে স্থানীয় লোকজন অনেক আন্তরিক ও অতিথিপরায়ণ।

সবাইকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের শুভেচ্ছা ও শুভকামনা।

লিখেছেনঃ তানভীর চৌধুরী পিয়েল

Most Popular

To Top