নাগরিক কথা

ছুরি হাতে মেয়েটি, মুখোমুখি আমরা…

ছুরি হাতে মেয়েটি, এবং...

গতকাল থেকে একটা নিউজ ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় একটা মেয়ে তার প্রাক্তন প্রেমিককে ছুরিকাঘাত করে আহত করেছে। প্রাথমিক ভাবে মেয়েটির দাবি, ছেলেটির সাথে তার সম্পর্ক ছিল, কোন কারনে সেটার অবসান হয়। তারপরও ছেলেটি নাকি গত এক বছর ধরে তাকে উত্ত্যক্ত করে যাচ্ছিল। তাই মেয়েটি অতিষ্ঠ হয়ে ছেলেটিকে ডেকে এনে ছুরিকাঘাত করে আহত করে এবং পালিয়ে যাওয়ার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্র তাকে ধরে পুলিশে সেপর্দ করে। ছেলেটির জবানবন্দি নেয়া যায় নি এখনো। ঘটনা মোটামুটি এমনই।

আসলে এধরণের ঘটনা নিয়ে আমার মাথাব্যাথা নেই। কে কাকে কিসের জের ধরে কোপালো বা আদার করে বাসায় ডেকে এনে দাওয়াত খাওয়াল সেটা তাদের ব্যাপার। খারাপ কিছু করলে শাস্তি হবে, ভাল কিছু করলে সম্পর্ক আরো জোরদার হবে, হবেই।

আমার আপত্তি অন্য অন্য কিছু মেরুদণ্ডহীন মানুষদের নিয়ে। যারা সবসময় খারাপ কাজকে খারাপ বলতে মনে কষ্ট পায়, যেকোন দুইটা খারাপ কাজকে খারাপ হিসেবে স্বীকৃত দেয়ার পরিবর্তে দুটোর মধ্যে তুলনা করে অপেক্ষাকৃত কম খারাপ কাজটাকে পুণ্যের কাজ হিসেবে স্বীকৃত দেয়, অথবা অপরাধীকে ছেলে এবং মেয়েতে বিভক্ত করে একটা নোংরা কনট্রোভার্সির সৃষ্টি করে।

আমি বলব না যে এরা এসব করে বেড়ায় আবার এরাই কোন অন্যায় কাজের সঠিক শাস্তি না হলে “সুবিচার হয়নি” কিংবা “ন্যায় বিচার চাই” বলে গলা ফাটায়। সুতরাং এরা ফালতু প্রকৃতির লোক, কিংবা এদের ভালমন্দ বিচার করা ক্ষমাতা নেই নিজের কাছে। কারন আমি অন্য কে জাজ করার ক্ষমতা নিয়ে জন্মাই নি। তবে এদের মানসিকতা সম্পর্কে ধারনা থাকা উচিৎ সবার।

এরা যখন কোন অন্যায়ের প্রতিবাদ করে তখন আমি এদের সাধুবাদ জানাই কারণ এমনটাই হওয়া উচিৎ আমাদের সবার। আবার যখন এরাই একই সাথে ভাল এবং খারাপ কাজের প্রতি সহানুভূতিশীল থাকে তখন এদের আমি আলাদা দৃষ্টিতে দেখি, সেটা অবশ্যই কোন শ্রদ্ধার দৃষ্টি নয়, পরিপূর্ণ ঘৃণার দৃষ্টি।

বি.দ্র. এত কিছু কেন আর কাকেই বা উদ্দেশ্য করে লিখেছি সেটা উপরের ছবিটার সাথেই আশা করি পরিষ্কার হয়ে যাবে, শুধু পেইজটার পোস্টটাই শেয়ার করলাম, কে এত যত্ন করে এমন নিউজ হাসি মাখা মুখে শেয়ার করেছে সেই দিকে আর গেলাম না। থাকুক সবাই নিজের স্যাটিসফ্যাকশন নিয়ে।

লেখকঃ ইয়াসিন আলি

Most Popular

To Top