বিশেষ

তিনি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটের মোঘল…

বর্তমানে ‘মোঘল অফ সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং’ হিসেবে পরিচিত মার্ক জাকারবার্গ। এই উপাধি আমি দিলাম। কেন দিলাম সে ব্যাখ্যায় যাওয়ার আগে অন্য এক মোঘল নিয়ে একটু আলোচনা করা যাক।

রুপার্ট মারডক, বর্তমান মিডিয়ার মোঘল হিসেবেই তিনি  দুনিয়ার কাছে পরিচিত। বিশ্ব মিডিয়াতে তার অবদান কতখানি হলে তিনি মোঘল উপাধি পেতে পারেন, তা এতক্ষণে বুঝে গেছেন সবাই। ফক্স চ্যানেলসহ পুরো বিশ্বের কথা বাদই দিলাম। শুধু দক্ষিণপূর্ব এশিয়ায় তার স্টার নেটওয়ার্ক যে দাপট দেখিয়ে যাচ্ছে তা আসলেই অন্যান্য চ্যানেলগুলোর কাছে ঈর্ষণীয়।

সে হিসাবে রুপার্ট মারডককে মোঘল বলা গেলে জাকারবার্গকে কেন বলা যাবে না? জাকারবার্গের সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সাইট ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা এ বছরের জুন মাস পর্যন্ত প্রায় ২ বিলিয়ন। নিচে উইকিপিডিয়া থেকে নেওয়া ফেসবুকের আয়, মোট সম্পত্তি এবং রাজস্বের ছোট একটা হিসাব সংক্ষেপে দিলামঃ

  • Revenue: US$27.638 billion (2016)
  • Operating income : US$12.427 billion (2016)
  • Net income : US$10.217 billion (2016)
  • Total assets : US$64.961 billion (2016)
  • Total equity : US$59.194 billion (2016)
  • Employees 20,658 (June 30, 2017)

আর জাকারবার্গের মোট সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ৭১ বিলিয়ন ডলার। তাহলে এখন তো পুরোপুরি বোঝাই যাচ্ছে, আমি কেনো মার্ককে ‘মোঘল অফ সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং’ বলে অভিহিত করেছিলাম।

মার্ক জাকারবার্গের জন্ম ১৪ ই মে ১৯৮৪ সালে। বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ বিলিয়নিয়ার হিসেবেও তিনি পরিচিত। ২৬ বছর বয়সেই মার্ক টাইম ম্যাগাজিনের দৃষ্টিতে বর্ষসেরা ব্যক্তি হিসেবে এবং ফোর্বসের চোখে বিশ্বের ১৫ তম সেরা ধনীব্যক্তি হিসেবে নির্বাচিত হন।

এবার একটু রুপালি পর্দার দিকে আসি। জগদ্বিখ্যাত অনেক ব্যক্তিত্বকে নিয়েই চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। হয়তো বা কেউ অর্থশালী ছিলেন, কিভাবে অর্থশালী হয়েছেন তা নিয়ে মুভি হয়েছে। আবার কেউ অনেক বাধাবিপত্তি পার করে বিখ্যাত হয়েছিলেন- সে কাহিনীকে পর্দায় উপস্থাপন করা হয়েছে।  যেমন :

  • Schindler’s List
  • Raging Bull
  • Goodfellas
  • Amadeus
  • A Beautiful Mind
  • Capote
  • The Aviator
  • Malcolm X
  • The King’s Speech
  • Walk the Line
  • Braveheart
  • Lincoln
  • The Pursuit Of Happyness

উপরোক্ত সব মুভিই কোন না কোন বিখ্যাত বা আলোচিত ব্যক্তিদের নিয়ে তৈরি।

ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। মাত্র ২০ বছর বয়সে নিজের সৃষ্টি দিয়ে দুনিয়া তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন যিনি, পেয়েছেন সম্মান আর হয়েছেন অর্থশালী এবং বিখ্যাত- তার এমন উত্থান, তার সে কর্ম জগৎ নিয়ে চলচ্চিত্র নির্মাণ হবে না তা কি করে হয়! যার এত সম্মাননা, এত অর্থসম্পদ, এত জনপ্রিয়তা এবং তার তৈরি সে ফেসবুককে নিয়ে যখন চলচ্চিত্রের কথা আসে- তখন সেটা নিয়ে সবারই উত্তেজনা থাকার কথা।

‘The Social Network’, মার্ক এবং তার তৈরি ফেসবুক নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্রের নাম। সিনেমাটি নিয়ে আলোচনায় যাবার আগে এক নজরে দেখে নিই এর খূঁটিনাটিঃ

  • Directed by: David Fincher
  • Screenplay by: Aaron Sorkin
  • Based on: The Accidental Billionaires by Ben Mezrich
  • Starring: Jesse Eisenberg, Andrew Garfield, Justin Timberlake, Armie Hammer, Max Minghella
  • Budget : $40 million
  • Box office : $224.9 million

ডেভিড ফিঞ্চারের এই মুভিটি সমালোচকেরা বেশ পছন্দ করেছেন। এমনকি অস্কার দৌড়েও এটি সামনের দিকে ছিল। চিনেছেন তো তাকে? ফাইট ক্লাব, সেভেন, দ্যা গন গার্ল, দ্যা কিউরিয়াস কেইস অফ বেঞ্জামিন বাটনের সেই বিখ্যাত পরিচালকটাই এই মুভির পরিচালক। যে ফাইট ক্লাবের টুইস্ট এখনো মুভিখোরদের মস্তিষ্কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। “ইউ ডোন্ট গেট টু ফাইভ হানড্রেড মিলিয়ন ফ্রেন্ডস উইদাউট মেকিং এ ফিউ এনিমিস” (কিছু শত্রু না বানিয়ে আপনি ৫০ কোটি বন্ধু বানাতে পারবেন না)- ছবির ট্যাগলাইন এটাই।

২০০৩ সালের কোন এক রাতে হার্ভাড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মার্ক জাকারবার্গ চালু করেন তার বন্ধুদের সাথে যোগাযোগ করার মাধ্যম ‘ফেসবুক’। যদিও ২০০৪ সাল থেকে ফেসবুক তার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে। যেখানে বর্তমানে এর ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ২ বিলিয়নের বেশি। কিন্তু এই লক্ষ্যে আসার রাস্তাটা কিন্তু এত সহজও ছিল না। বরাবরই মার্ক নিয়ে একটা গুঞ্জন শোনা যায় তিনি নাকি তার প্রিয় সহপাঠী বন্ধুদের মেধা কাজে লাগিয়ে ফেসবুক আবিষ্কার করেন। এই ব্যাপারটা আদালত পর্যন্তও গড়ায়। যদিও পরে বহু অর্থের মাধ্যমে সে মামলার নিষ্পত্তি করা হয়। মার্ক খুব সাধারণ ভাবে জীবনযাপন করা এক বিখ্যাত ব্যক্তি। নারীসংক্রান্ত কিছু কাহিনী ছাড়াও ব্যক্তিস্বার্থে সে ছিল অবিচল। যেটা মুভি দেখলেই বোঝা যায়। এইজন্যেই হয়তো বা তিনি বলেছিলেন তার জীবদ্দশায় তাকে নিয়ে কোন মুভি নির্মাণ যেন না হয়। কিন্তু তার ইচ্ছেটা আর টিকলো কই?

মুভিতে মার্ক জাকারবার্গের চরিত্রে অভিনয় করেন জেসে আইজেনবার্গ। আমি মনে করি এটাই ছিল ‘Now You See Me’ মুভি তারকার ক্যারিয়ার সেরা অভিনয়। পাশাপাশি  এন্ড্রু গারফিল্ড, টিম্বারলেক, ম্যাক্স মিঙ্গেলাসহ আরো অনেকে তাদের ক্যারিশমেটিক অভিনয় দেখিয়ে দিয়েছেন।

অপরদিকে মিউজিকে Trent Reznor, Atticus Ross তাদের সেরা কাজ দিয়ে মুভিটিকে নিয়ে গেছেন অন্য উচ্চতায়। তাই তো ২০১১ সালের ৮৩ তম অস্কারের প্রতিযোগিতায় বেস্ট পিকচার, বেস্ট একটর, বেস্ট সিনেমাটোগ্রাফি, অরিজিনাল স্কোর, বেস্ট ডিরেক্টর, বেস্ট ফিল্ম এডিটিং এবং বেস্ট এডপ্টেড স্ক্রিনপ্লে নমিনেশনের মধ্যে এডপ্টেড স্ক্রিনপ্লে, অরিজিনাল স্কোর, বেস্ট ফিল্ম এডিটিং- এই তিন বিভাগে অস্কার নিজের করে নেয় ‘The Social Network’ মুভিটি। এছাড়াও  Schindler’s List, L.A Confidential এর পর তৃতীয় মুভি হিসেবে ন্যাশনাল বোর্ড অফ রিভিউ, ন্যাশনাল সোসাইটি অফ ফিল্ম ক্রিটিক্স, নিউইয়র্ক ফিল্ম ক্রিটিক্স সার্কেল, লস এঞ্জেলস ফিল্ম ক্রিটিক্স এসোসিয়েশনের এওয়ার্ড অর্জন করে ইতিহাস সৃষ্টি করে মুভিটি। তাছাড়া আমেরিকান ৭৮ জন ক্রিটিক্স এই মুভিকে ২০১০ সালের টপ টেন মুভি’র একটি হিসেবে নির্বাচিত করেন। বিবিসি’র পরিচালনায় দুনিয়াজোড়া বিখ্যাত ১৭৭ জন ক্রিটিক্স এই মুভিকে ২১ শতকের শ্রেষ্ঠ কয়েকটি মুভির একটি নির্বাচিত করেছেন। আর শিকাগো সান-টাইমসের বিখ্যাত  ফিল্ম ক্রিটিক্স রজার এবার্ট এর মতে এটি ছিল সে বছরের সেরা চলচ্চিত্র। তিনি বলেন,

“It is the best film of the year… David Fincher’s film has the rare quality of being not only as smart as its brilliant hero, but in the same way. It is cocksure, impatient, cold, exciting and instinctively perceptive.”

এছাড়া Rolling Stone এর Peter Travers মুভিটি নিয়ে বলেছেন,

“The Social Network is a hard-charging beast of a movie with a full tank of creative gas that keeps it humming from start to finish.”

তবে এত ভূরি ভূরি সম্মান, ক্রিটিক্সদের প্রশংসা এবং বাম্পার ব্যবসা করা মুভি নিয়ে জাকারবার্গ স্বয়ং নিজে বলেছেন, “এই মুভিতে শুধু আমার পোশাক ছাড়া আর আমার কোনকিছুর সাথে মিল নেই।”

পরিশেষে বলব, মুভি এবং ব্যক্তি মার্ক জাকারবার্গ নিয়ে যত কথাই থাকুক না কেনো, ব্যক্তি মার্ক যেমন সফল হয়েছেন, তেমনি তাকে নিয়ে মুভিটাও  সফলতার মুখ দেখেছে। শিক্ষণীয় এই মুভিতে বিনোদন নেওয়া ছাড়াও ‘The Social Network’ মুভিটি হতে পারে অনুপ্রেরণা খোঁজার একটি ভাল উৎস!

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top