বিশেষ

“ঢাকা অ্যাটাক” এবং দেশীয় চলচ্চিত্রে একরাশ মুগ্ধতা…

প্রথম কথা: বসে না থেকে কষ্ট হলেও, হলে গিয়ে দেখুন। বাংলা সিনেমায় নতুনত্ব উপভোগ করুন।

এবার সিনেমাটিকে কাঁটাছেড়া করা যায়।

ঢাকা অ্যাটাক মুভিটি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা, জল্পনা-কল্পনা সেই অনেক আগে থেকেই। এত দীর্ঘ সময় আলোচনার পর যখন মুক্তি পেল, তখন একটা কথাই যথেষ্ঠ- “আপনি আশাহত হবেন না”।

ইয়া ঢিশুমাইট ঢিশুমাইট… ভিলেন শেষ… আমার গল্পটি ফুরোল, নটে গাছটি মুড়লো… টাইপের “ইউ আর আন্ডার এরেস্ট” বলতে বলতে ভিলেনের চ্যালাচামুন্ডা ধরতে সিনেমার শেষে পুলিশ হাজির! এই অভিজ্ঞতাটা ঝেড়ে ফেলে দিয়ে সিনেমাটি দেখতে ঢুকুন।

ছোটখাট কিছু ভুল রয়েছে, তবে সেইসব নিয়ে আজ আলোচনা করতে চাচ্ছি না। সেসব নিয়ে নাহয় সবাই সিনেমাটি দেখার পরই কথা হবে…

কিন্তু এই ছোটখাট ভুলগুলো বাদ দিলে? নাহ, বাদ না দিলেও অসাধারণ একটি মুভি। নিশ্চয়ই আপনি এমন জনরা এর সূচনায়ই দ্যা ডিপার্টেড, নো কান্ট্রি ফর ওল্ড ম্যান কিংবা দ্যা ফ্রেঞ্চ কানেকশন আশা করবেন না।

আপনি যদি সিনেমাটোগ্রাফি, এডিটিং কিংবা আবহ সংগীতের কথা বলেন সেক্ষেত্রে সিনেমাটি শুধু উতরে যায়নি, বরং এসব জায়গায় বেশ ভালো স্কোর করেছে!

অনেকেই হয়তো ডার্ক কিছু সিন দেখে ভাবতে পারেন ক্যামেরা কিংবা এডিটিং-এ গ্যাপ ছিল। কিন্তু বিষয়টি মোটেও এমন নয়। ন্যাচারাল লাইটে কাজ করার চেষ্টা এবং বাস্তববাদী ভিউয়ের জন্যই মুভিটাকে আরও বাস্তব মনে হয়েছে।

ইনফ্রারেড গগলসের ব্যাবহার দেখাতে পারলে আরও ভালো লাগত। যদিও যা দেখিয়েছেন পরিচালক, তাও কম নয়। ব্যুবি ট্র্যাপ, সিক্রেট ক্লজিট, রিমোট জ্যামার- কি ছিল না মুভিতে? এধরনের চলচ্চিত্রের জন্য অত্যাবশ্যকীয় কোন অনুষঙ্গই বাদ দেননি নির্মাতারা।

আরেফিন শুভ, মাহিয়া মাহি, এ.বি.এম সুমন, শতাব্দী ওয়াদুদসহ প্রত্যেকেই ভালো অভিনয় করেছেন। ব্যাক্তিগতভাবে বেশি নাম্বার দেব এ.বি.এম সুমনকে। তার লুক এবং সোয়াট মেম্বার হিসেবে রেইড করেই কমান্ড দেয়ার যায়গাগুলো ছিল নিখুঁত। এবং পারিবারিক সিচুয়েশন গুলো ফেস করার সময়ও তার অভিনয়ে কোন গ্যাপ ছিল না। শুভ’ও বেশ ভালো, দ্বিতীয়ার্ধের থেকে প্রথম আর্ধে তার অভিনয় বেশি ভালো লেগেছে। মাহি’র আরও ভালো করার সুযোগ ছিল। আর রিপোর্টার হিসেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎকার নেয়ার সময় সানগ্লাস পড়ে থাকাটা কিছুটা দৃষ্টিকটূ লেগেছে। নওশবার অভিনয়ের যায়গা কম থাকলেও যতটুকু ছিল তিনি ভালোই করেছেন। ভিলেন তাসকিন আরও একটু স্মার্ট হলে (ডায়লগ ডেলিভারীতে) কম্বোটা অসাধারণ হতো (ব্যাক্তিগত মতামত)। আলমগীর কিংবা আফজাল হোসেনকে সেভাবে হাইলাইট করা হয়নি, অবশ্য ততটা সময়ও ছিল না। তবে পর্দায় তাদের যতটুকু উপস্থিতি ছিল তা ভালোই ছিল। সাথে বাকি পার্শ্বচরিত্রগুলোও ছিল মানানসই এবং তাদের যোগসূত্রগুলোতে কোন ফাঁক-ফোকর রাখেননি পরিচালক।

গানগুলো ভালো, এবং সেইসাথে চিত্রায়নের লোকেশনগুলোও ভালো ছিল। নায়ক-নায়িকার পেছনে উড়ে এসে জুড়ে বসে, তাল মিলিয়ে সেইম স্টেপ দেয়া কোন বেলি ড্যান্সারের দল ছিল না। আর “টিকাটুলির মোড়” ছিল এক কথায় “সেরা”। নতুন আঙ্গিকে পাবেন গানটি। বাড়তি পাওনা; গানের সাথে নাচ অসাধারণ ছিল। বিট ধরে ধরে প্রত্যকের স্টেপের টাইমিং নিখুঁত! বাংলা সিনেমায় এমন খুব কমই দেখা যায়।

এবার পরিচালনায় আসা যাক। পরিচালক নতুন ভাবে দর্শকদের নতুন কিছু দেয়ার চেষ্টা করেছেন, চেষ্টা করেছেন গল্প বলায় ভিন্নতা আনার। এক্ষেত্রে বলতেই হবে দীপংকর দীপন সফল। তিনি কাহিনীতে কোন একটা জায়গায়ও গ্যাপ দেননি কোন হাফেই, যেটা সত্যিকার অর্থেই টানটান একটি আমেজ তৈরি করেছে দর্শকের মনে। এবং যার ফলশ্রুতিতে দর্শকের কাছে কোথাও কোন খাপছাড়া দৃশ্য আসেনি। আর সবচেয়ে বেশি ভালো লেগেছে, যেই ভুলটা এখনো বলিউড এর মুভিগুলোতেও করে সেটা তিনি করেননি। এখনো বলিউডের মুভিতে আমরা দেখি ইন্ডিয়ান পুলিশ বাইরের দেশে যায়। দেশে থাকা অবস্থায় টুকটাক ইংরেজি বললেও বাইরে গেলে আপাদমস্তক শুদ্ধ দেশি হিন্দি ভাষায় কথা বলেন! এবং বাইরের দেশের পুলিশ এবং আমজনতাও কিভাবে যেন হিন্দি ভাষায় কথা বলার অসাধারণ দক্ষতা রাখে! এই যায়গায় পরিচালক মুন্সিয়ানার পরিচয় দিয়েছেন। যখন যে ভাষার দরকার ছিল ব্যাবহার করেছেন। স্ট্যান্ডার্ড ধরে রাখার জন্য অবশ্যই ধন্যবাদ পাবেন পরিচালক।

ছোটখাটো ভুলগুলো সামনে শুধরে নিয়ে আরও অনেক অসাধারণ মুভি উপহার দিবেন আশা রাখি।

পরিশেষে বলা যায় সব মিলিয়ে “ঢাকা অ্যাটাক” একটি কমপ্লিট প্যাকেজ এবং দেশীয় চলচিত্রে একটি নতুন স্ট্যান্ডার্ড তৈরি করে দিয়েছে। পয়সা যে উসুল হয়েছে- সে কথা নিশ্চয়ই আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

আর সময় নিয়ে ঝামেলা না হলে হয়তো ২০১৯-এ আমরা আরও একটি ব্লকবাস্টার দেখতে যাচ্ছি।

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top