ইতিহাস

“সীমান্ত গান্ধী” আব্দুল গাফফার খান- অহিংসা ছিল যার অস্ত্র

সীমান্ত গান্ধী আব্দুল গাফ্ফার খান - এক চির ভাস্মর নক্ষত্রের জন্য সামান্য শ্রদ্ধাঞ্জলি

আজ আপনাদের সামনে তুলে ধরবো এক অসামান্য ব্যক্তিত্বকে যার চর্চা হয় না কোনো বুদ্ধিজীবীর ড্রয়িং রুমে অথবা কোনো দূরদর্শনের ঘন্টাখানেক এ, কোনো প্রিন্ট মিডিয়া প্রশ্ন তোলে না কেন লোকটির এই অবস্থা হলো। কারণ? ওটা আপনারাই বিবেচনা করবেন।

যারা তাকে চেনেন না তাদের জন্য কিছুটা পরিচিতি দিচ্ছি। এই মানুষটি ছিলেন অবিভক্ত ভারতের তৎকালীন ব্রিটিশ শাসনের উত্তর-পশ্চিম প্রদেশের অবিসংবাদিত নেতা। গান্ধীজির আদর্শে অনুপ্রাণিত কংগ্রেসের সমর্থক এই মানুষটি বেছে নিয়েছিলেন অহিংস আন্দোলনের রাস্তা। তিনি এবং তার অনুসারীরা ১৯২৯ সালে শুরু করেন অহিংস এক আন্দোলন। মনে রাখবেন ওই অঞ্চলের পাখতুন গোষ্ঠীকে অহিংস পথে চালনা করা আর বাঘ কে নিরামিষ খাওয়ানো একই বস্তু। এই মানুষটি এবং তার অনুসারীরা নিজেদের ‘খুদা-ই- খিদমতগার’ মানে ঈশ্বরের সেবক বলতো। একসময় তিনি এতটাই জনপ্রিয় হয়েছিলেন যে তাকে আখ্যায়িত করা হয় সীমান্ত গান্ধী বলে। আজকের তালিবান আলকায়দা অধ্যুষিত এই প্রদেশে মোল্লা তন্ত্রের আবাদের জায়গায় এই লোকটি পুরো উল্টো দিকে চালনা করেন স্থানীয় মানুষদের।

ইতিহাসের সেই কালো অধ্যায়ের সময়ে জিন্নাহ এবং বাকি প্রাণীদের উস্কানিতে আলাদা মুসলিম ভূখণ্ডের দাবির মাঝে এই মানুষটি অসম লড়াই বেছে নিয়েছিলেন। আজকাল যে মুসলিম উম্মাহ ইত্যাদির কথা যারা বলে তাদের জন্য বলি , এই লোকটি এবং তার নেতৃত্বে বিরোধিতা করেছিলেন ওই কেবল মুসলিম রাষ্ট্রের দাবি। আফগান এবং পাঠান রক্তের এই মানুষগুলোকে এক ডাকে গণভোট বয়কট করিয়েছিলেন। মনে রাখবেন ৮৩ শতাংশ মানুষ তার ডাকে ভোটদানে বিরত থাকেন। এইখানেই মানুষটি রাজনৈতিক ভুল করে ফেলেন। ওই গণভোট এর দুটো রাস্তা দেওয়া হয়েছিল হয় ভারত অথবা পাকিস্তান এর সাথে অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাওয়া। তিনি আর তার ভাই খান সাহেব সিদ্ধান্ত নেন তারা পাখতুনস্থান চাইবেন।

তাদের দাবি মানা হয় নি, ব্রিটিশ এবং মোল্লা উদ্যোগ এরপর ক্রমাগত ওই অঞ্চলের মানুষের কাছে সহি মুসলিম দেশের প্রচার চালিয়ে যায়। সে সময়ের প্রশাসক কানিংহাম এর রিপোর্ট এই কাজের উপর সরকারি নোট এ বলেছে যে ক্রমাগত হিন্দু শাসনের কারণে কি কুফল হতে পারে তার প্রচার চালায় জিন্নাহর দোসররা। একসময়ে সরল পাহাড়ি ওই মানুষদের মাথারা এর প্রভাবে প্রভাবিত হয়। এর উপর অনেকের বিশেষ অনুভূতি জাগলে বলবো, এর সরকারি প্রমানের কথা আছে তৎকালীন উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের গভর্নর জেনারেল লর্ড কানিংহ্যাম (১৯৩৭ থেকে ৪৬, এবং ১৯৪৬ থেকে ১৯৪৮ পর্যন্ত ক্ষমতাসীন,পাঠক শেষ বছর গুলো খেয়াল করে) স্বীকার করেন সরকারি নথিতে যে তারা সর্বাত্বক চেষ্টা চালায় যাতে ওই খুদা-ই- খিদমতগার এবং বাদশা খান এর প্রভাবকে দূর করা যায় আর ওই অঞ্চলকে পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত করা যায় তার জন্য।

অতঃপর ওই কয়েক ভাগ মানুষের রায় নিয়ে পাকিস্তান সৃষ্টি হলো। গাফ্ফার খান (সীমান্ত গান্ধী ) নতুন দেশের এসেম্বলিতে এলেন ১৯৪৮ সালে। তার দাবি নিয়ে আবেদন জানালেন জিন্নাহর কাছে। তিনি জিন্নাহ কে আমন্ত্রণ জানালেন পেশোয়ারের খুদা-ই- খিদমতগার এর সদর দফতরে আলোচনার জন্য। ততদিনে বিষ বৃক্ষের ফলন শুরু হয়ে গিয়েছে। তৎকালীন সীমান্ত প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী খান আব্দুল কায়ুম খান জিন্নাহকে বুঝায় যে এই মানুষটি জিন্নাহ কে মারার পরিকল্পনা করেছে। এর পরের ঘটনা অতীব দুঃখজনক, জিন্নাহ এই মানুষটিকে কারাগারে পাঠায়। ১৯৪৮ থেকে ১৯৫৪ পর্যন্ত কোনো অভিযোগ ছাড়াই তাকে জেলে বন্দি রাখা হয়। গণতন্ত্রের কি মহান উন্মেষ?

অতঃপর মিলিটারি শক্তির প্রতিভূ ইস্কান্দার মির্জা ১৯৫৫ তে তৎকালীন গণতন্ত্রের গলা ধাক্কা দিয়ে দূর করেন এবং পাকিস্তানকে ইসলামিক রিপাবলিক করে ফেলেন। সেই সময়ে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানকে দমিয়ে রাখতে (মনে রাখবেন ভাষা আন্দোলনে জিন্নাহ বুঝে গিয়েছিল তার চালাকি বাঙালি মুসলিম ধরে ফেলেছে ) এবং এর সাথে বাদশা খান পাকিস্থান এর আনুগত্য না মেনে নেওয়ায় তৈরী করেন ক্ষমতার কেন্দ্রীকরণ মানে ওয়ান ইউনিট সলিউশন। সীমান্ত গান্ধী রুখে দাঁড়ান এর বিরুদ্ধে ফলে আবার তাকে জেলে পাঠায় পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠী।

ইস্কান্দার মির্জাকে ব্যবহার করে ১৯৫৮-তে আইয়ুব খান এক অদ্ভুত যৌথ শাসক (পার্টনারশিপ বলতে পারেন) গোষ্ঠীর উৎপত্তি করেন। এরপরই অবশ্য মির্জার গলাধাক্কা জোটে এবং পূর্ব সংবিধান আর সেই মুসলিম লীগ এর সমাপ্তি। নতুন প্রভু আইয়ুব খান চেষ্টা করে এই মানুষটিকে কিনে নিতে। তাকে উৎকোচ দিতে চান মন্ত্রী করে। গাফ্ফার খান তার স্বভাবসিদ্ধ রূপে প্রত্যাখ্যান করেন। অতঃপর আবার তাকে জেলে যেতে হয়। এইভাবে তাকে জেলে রাখে ১৯৬৪ সাল পর্যন্ত। ততদিনে তার শরীর ভেঙে গেছে, স্বাস্থ্যগত কারণে অবশেষে তাকে জেল থেকে মুক্তি দেয় সামরিক শক্তি। এরপর আর দেশে থাকতে পারেন নি , চিকিৎসা করতে যেতে হয় ব্রিটেনে আর তারপর চলে যান আফগানিস্তানে স্বেচ্ছা নির্বাসনে। ফিরে আসেন ১৯৭২-এ, ততদিনে সামরিক শক্তি বাংলাদেশে উপযুক্ত শিক্ষা পেয়ে সাময়িক ক্ষমতা ছেড়েছে আর অন্য দিকে তার ছেলে আব্দুল ওয়ালী খান ফিরেছেন সীমান্ত প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে। এই সময়ে ওয়ালী খান সীমান্ত প্রদেশ আর বালুচিস্থানের গণতান্ত্রিক সরকারের ক্ষমতা পেয়েছিলেন (ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি)।

তিনি আবার ভুট্টোর স্বৈরতান্ত্রিক শক্তির রোষের শিকার হন ১৯৭৩ সালে। আবার তাকে জেলে পাঠায় ভুট্টোর সরকার। ঘৃণায় আর ক্ষোভে তিনি একবার বলেছিলেন, এই তথাকথিত ইসলামিক সরকারের থেকে তো ব্রিটিশ শাসক ভালো ছিল, অন্ততঃ তাদের ব্যবহার এইরকম জন্তুর মতো ছিল না। পাঠক, ৭১-এর পর কিন্তু শিক্ষা নেয়নি এই অপজাতকরা। খেয়াল করুন। তার শেষ আন্দোলন ছিল পাকিস্তানের প্রস্তাবিত কালা বাঁধ প্রকল্পের উপর। এই বাঁধ সীমান্ত প্রদেশের অজস্র মানুষের সর্বনাশ ডেকে আনবে এই ছিল তার অভিমত। প্রসঙ্গত আজো ওই বাঁধ করতে পারে নি পাকিস্তানের কোনো সরকার।

আজীবন মাথা উঁচু করে বেঁচে থাকা এই মানুষটিকে আশির দশকে কংগ্রেস সরকার প্রস্তাব দেয় গান্ধীজির আশ্রমের কাছেই তার বাসস্থান করে দেওয়ার, তিনি সবিনয়ে প্রত্যাখ্যান করেন এবং নিজের এক সময়ের বাড়ি আফগানিস্তানের জালালাবাদে তার কবর হোক ওটাই বলেন। মনে রাখবেন, এই সীমান্ত প্রদেশ কিন্তু কোনোকালেই পাকিস্তানের অংশ হতে চায় নি, আজো চায় না। সে কাহিনী অন্য একদিন বলবো।

অবশেষে ১৯৮৮ সালে পেশোয়ারের লেডি রেডিং হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। এর আগে তিনি পেশোয়ারে গৃহবন্দী ছিলেন বলাই বাহুল্য! তার শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী তার সমাধি হয় আফগানিস্তানের জালালাবাদে। হে উম্মার সমর্থক, একজন জনগণের প্রকৃত নেতা কতটা ক্ষোভে নিজের শেষ শয্যা দেশের বাইরে চেয়েছে ওটা একটু ভাবুন!

তার মৃত্যুর পর হাজারো জনতা সীমান্তের বাধা মানে নি। সেই অগ্নিগর্ভ সময় যখন সেভিয়েত আগ্রাসনের বিরুদ্ধে আমেরিকার আর সৌদির পয়সায় মৌলবাদ জাকিয়ে বসেছে সেই সময়ে ফৌজি রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে, ইসলামিক জঙ্গির হুমকি উপেক্ষা করে সাধারণ মানুষ যোগ দিয়েছিলেন তার অন্তিম যাত্রায়। মনে রাখবেন এই যাত্রাপথে বোমা বিস্ফোরণ হয়, ১৫জন মারা যান তবু ওই পাখতুন মানুষগুলো তাদের যাত্রা বন্ধ করেন নি।
হায় জিন্নাহ তুমি এই সম্মান পাও নি, মারা গিয়েছো একা একটি এম্বুলেন্সে আর জনতার বাদশা, রাজার রাজা মারা যাওয়ার সময় যুদ্ধবিরতি হয় সেভিয়েত অধিকৃত আফগানিস্তান আর পাকিস্তানে। হ্যা, ঠিক শুনেছেন; ওই মারাত্বক সময়ে এক দিকে জালালাবাদ আর অন্য দিকে পেশোয়ারে একটা যুদ্ধবিরতি করে দুই পক্ষ। ধর্মের নাম তৈরী সীমান্ত একাকার হয়ে যায় মৃত বাদশা খানের দৌলতে। কি বলবেন একে?

এই বিষবৃক্ষ এতটাই ছড়িয়েছে যে তার নামের বিশ্ববিদ্যালয়ে তার মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধা জানাতে জড়ো হওয়া ছাত্র ছাত্রী আর শিক্ষক এবং শিক্ষিকাদের উপর জঙ্গি হামলা চালায়। ২০১৬ সালের ২০ জানুয়ারিতে। মৃত্যু হয় ২১ জন নিরাপরাধ মানুষের। ১৮ থেকে ২৫ বছর বয়েসী একদল (আট থেকে দশ জনের আত্বঘাতী দল) নির্বিচারে গুলি চালায় ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে। মগজ ধোলাই এর মহান ফলাফল একদম হাতে হাতে পাওয়া যাচ্ছে। অবশ্য এতে অনেকের আনন্দ হওয়ার কথা, যাক আবার প্রসঙ্গে আসি, পাঠক কি খেয়াল করছেন কত ভঙ্গুর এই পাকিস্তান নামের কল্পিত দেশটি?

আমরা আরো জানি না যে ওই আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টি ছিল বাংলাদেশের আওয়ামী লীগ এর ৭১ পূর্ববর্তী সঙ্গী দল। আরো জানি না যে এখনো ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি কে পাখতুনরা সবচেয়ে বেশি ভোট দেয়। পাখতুনরা এখন আন্দোলন করছে ওই ইসলামী মৌলবাদকে বিদায় করতে। পারছে না কারন ওই মৌলবাদ না থাকলে যে অনেকের খুব অসুবিধা হবে! তারা সরাসরি অভিযোগ তুলেছে পাকিস্তানি শাসক আর সৌদি শাসকদের উপর। তারা বলছে ওই পেট্রো ডলার ব্যবহার করে এই দুই পক্ষ ইসলামী সন্ত্রাসবাদকে তাদের প্রদেশে ছড়াচ্ছে। জানি, আমার কথায় অনেকের হয়তো কোনো অনুভূতিতে আঘাত লাগতে পারে তবে যুক্তি নিয়ে আসতে অনুরোধ করবো। আমার লেখা কিন্তু আমার নিজের ধারণার উপর না, সূত্র দেবো একদম পাকিস্তানের তথ্যসূত্র দিয়ে।

খেয়াল করুন, শুধু আমাদের দিকের মানুষগুলোই না, ওই দিকের আফগান আর বর্তমান পাকিস্তানের সীমান্ত প্রদেশ কিন্তু একই ভূখণ্ডের অংশ। ওরা আজো কিন্তু নিজেদের দাবি ছাড়ে নি। বাদশা খানের মৃত্যু হলেও তার দীর্ঘ ছায়া কিন্তু বড় পীড়া দিচ্ছে এই পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠীকে।

আমরা এই পাখতুন প্রদেশের লোকগুলোকে এখন জানি তালিবান এর আড্ডা হিসেবে, দাঁড়ান, দাঁড়ান! ছয় ফুটের উপর উচ্চতার সীমান্ত গান্ধীর মৃত্যুর পর কিন্তু হারিয়ে যান নি। পেট্রো ডলার হয়তো তার নাম আমাদের কাছে পৌঁছাতে দিচ্ছে না। তবু তিনি আছেন, আর সেই জন্যই কিন্তু তার নামাঙ্কিত বিশ্ববিদ্যালয় (বাচ্চা খান ইউনিভার্সিটি, তাকে প্রদেশের মানুষ আদর করে ওই নামে ডাকতো) এর উপর এদের এতো রাগ। মৃত বাদশা কিন্তু জীবিত মানুষটির থেকেও শক্তিশালী। তার নমুনা আমরা দেখবো, হ্যা আমার দৃঢ় বিশ্বাস নিশ্চয়ই দেখবো। পশু শক্তি কখনোই মানুষের উপর চিরদিন রাজত্ব করতে পারে না।

গত ৫০ বছর পাকিস্তানের এই প্রদেশে গাফ্ফার খান এর দল ক্ষমতাসীন ছিল, একমাত্র ব্যতিক্রম হয় পাকিস্তান পিপলস পার্টি আমেরিকার সৌজন্য একবার ক্ষমতা পাওয়ায়। এই অদ্ভুত এক দেশে কি সেই জাদু যা একটা দলকে এইভাবে ক্ষমতায় রাখে? হ্যা, মানুষের নেতা বাচ্চা খান এর ভাবমূর্তি।
আমি আগেও বলেছিলাম এই অদ্ভুত দেশটি একদিন থাকবে না, আজো বলছি ওটা সময়ের অপেক্ষায় আছে। দুর্ভাগ্য আমাদের, আমরা এই মানুষটিকে মনে রাখিনি। আপোষহীন এক মানুষের নেতাকে আমরা য্থায্থ সম্মান দিই নি। আজ সময় এসেছে, আসুন এই মানুষটিকে একটু স্মরণ করি।

মানুষটি তার হাজার হাজার পাঠান সেনা তৈরী করেন যারা নিরস্ত্র হয়ে সশস্ত্র ব্রিটিশদের রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছিল। এই রেড শার্ট মানে লাল কুর্তার অকুতভয় সেনানীর শপথ বাক্যগুলো পেলাম তার নামাঙ্কিত একটি ওয়েব সাইটে। আমার সীমিত ক্ষমতায় ওটার বাংলা করলাম। বড় সুন্দর সেই শপথ বাক্যগুলো। যদিও আমি ঈশ্বর বিশ্বাসী না তবু অবাক হয়ে যাচ্ছি কি করে ওই দুর্দম দুঃসাহসী বন্দুক আর তরোয়াল প্রেমী একটি জাতকে এইভাবে চালনা করা যায়? আসুন না, একটু ওই ভাবে আবার ঘুরে দাঁড়াই, যে যার জায়গায় দাঁড়িয়ে একই ভাবে আবার তার লড়াইটা শুরু করি?

শপথ বাক্যগুলো দিলাম:

“আমি খুদা-ই-খিদমতগার (ঈশ্বরের সেবক) শপথ নিচ্ছি, যেহেতু ঈশ্বরের কোনো সেবা লাগে না, তাই আমি তার সৃষ্টিকে সেবা করার মাধ্যমে তার সেবা করবো নিঃস্বার্থ ভাবে। আমি কখনো হিংসার আশ্রয় নেবো না, আমি আরো শপথ করছি যে আমি প্রত্যাঘাত করবো না বা প্রতিহিংসা চরিতার্থ করবো না। কেউ আমাকে শারীরিক বা মানসিক ভাবে নির্যাতন করলে আমি তাকে ক্ষমা করবো। আমি পারিবারিক বা গোষ্ঠী স্বার্থের বাইরে প্রত্যেক পাখতুনকে আমার নিজ ভাই বা সাথী ভাববো। কু-অভ্যেস বা অসৎ পথে যাবো না। আমি সরল জীবন যাপন করবো। কোনো খারাপ কর্ম থেকে নিজেকে দূরে রাখবো। নিজের চরিত্র গঠন করবো। নিজের ভালো অভ্যাস গড়ে তুলবো। অলস জীবন যাপন করবো না। আমার এই কাজের জন্য আমি কোনো পুরস্কার আশা করবো না। ভয়হীন ভাবে জীবন যাপন করবো এবং যে কোন আত্বত্যাগের জন্য প্রস্তুত থাকবো “

এবার খালি ওই অঞ্চলের মানুষগুলোর কথা ভাবুন, তাদের অস্ত্র প্রীতি বা আজকের হিংসা প্রবণতার কথা ভাবুন। তারপর ভাবুন, কোন জাদুবলে এই মানুষটি ওই কাজ করেছিল। একজন না, হাজারে হাজারে পাখতুন তৈরী হয়েছিল। হ্যাঁ, কাজটা আমাদেরই করতে হবে, আমরা সবাই এক একজন সীমান্ত গান্ধী হতে পারি যে যার অবস্থানে দাঁড়িয়ে।

বাচ্চা খানের এই অসমাপ্ত লড়াইটা এবার এইদিকে করার দিন কিন্তু আগত প্রায় কারণ উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের খেলা কারন আমাদের ঘরের অঙ্গনে অশনি সংকেত দেখতে পাচ্ছি। কোনো কাণ্ডারির উপর ভরসা না করে তাই বলছি, ” সামনে অনেক বড় তুফান আসতে পারে, বন্ধু হুশিয়ার! ”

ছবি এবং তথ্যসূত্র ইন্টারনেট। হালফিলে পড়া একটা বই এর লিংক দিলাম আরো বিস্তারিত জানতে চাইলে ঘুরে আসতে পারেন সেই লিঙ্ক গুলোতে।

তথ্যসূত্র :
১. বাচ্চা খান ট্রাস্ট
২. উইকিপিডিয়া
৩. দ্যা ডন পত্রিকা
৪. দ্যা গার্ডিয়ান পত্রিকা
৫. এই বইটি পড়তে পারেন, সীমান্ত গান্ধী ছাড়া ও অনেক চমকপ্রদ তথ্য পাবেনঃ A Brief History of Pakistan
৬. ওয়ার্ল্ড এফেয়ারস

Most Popular

To Top