ফ্লাডলাইট

সাকিবের রেকর্ড, হিংস্র টাইগারবাহিনী ও অসহায় অজি দল

neon aloy সাকিব রেকর্ড ৫ উইকেট নিয়ন আলোয়

১ম দিনের শেষভাগ। ইনিংসের সপ্তম ওভারের শেষ বল। নাইটওয়াচম্যান নাথান লায়ন বলের লাইন বুঝতে না পেরে এলবিডব্লু। উইকেটের খাতা খুললেন সাকিব আল হাসান।

২য় দিন। ইনিংসের ৩৬তম ওভারের প্রথম বল। আগের দিন থেকেই টাইগার স্পিনারদের বলে নৃত্য করতে থাকা ম্যাট রেনশ’ অবশেষে ফার্স্ট স্লিপে সৌম্যের হাতে ক্যাচ দিলেন, সৌম্য তা দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় ধরে ফেললেন। সাকিবের হল দুই।

ইনিংসের ৪৪ তম ওভারের প্রথম বল। মারমুখী গ্লেন ম্যাক্সওয়ে ফ্লাইট আর লুপের ফাঁদে পড়ে একেবারে অসহায় হয়ে স্টাম্পড হলেন। কতটা অসাধারণ ছিল এই ডেলিভারিটি, নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাস করার মত নয়। অবশ্য সাকিব আল হাসানের কাছে এ আর এমন কি? ইনিংসে সাকিবের তিন।

এরপরে মোটামুটি লম্বা একটা সময় কাটিয়ে দিলেন দুই টেলএন্ডার প্যাট্রিক কামিন্স ও অ্যাস্টন অ্যাগার। ১৪৪ রানে ৮ উইকেট পড়ার পরে এই দুইজন মিলে কাটিয়ে দিয়েছেন প্রায় ২৫ ওভারের মত।

প্রতিবারের মত এবারও টেলএন্ডারদের গলার কাঁটা হয়ে ওঠা ঠেকাতে ত্রাণকর্তা রূপে হাজির আবারো সাকিব।
৬৯তম ওভারের ৩য় বল। আর্মবলে ইনসাইড এজ হয়ে প্যাট কামিন্স বোল্ড। সাকিবের হল ৪।

এরপরে রঙ্গিন পোষাকে নিজের জার্সি নাম্বার, অর্থাৎ ৭৫ তম ওভারের ৫ম বলে হালকা ভেতরে ঢুকে আসা বলে জশ হ্যাজেলউডকে শর্ট লেগে ইমরুল কায়েসের সহজ ক্যাচ বানানো। অলআউট অজি’রা। সাথে হয়ে গেল সাকিবের ৫, খরচা ৬৮ রান।

টেস্ট ক্রিকেটে সাকিব এর আগে আরো ১৫ বার ইনিংসে ৫ উইকেট নিয়েছেন। তবে এটা সবার থেকে আলাদা। কারণ এবারের ৫ উইকেটটা নিয়েই ইতিহাসের মাত্র ৪র্থ ক্রিকেটার হিসেবে ৯টি টেস্ট সদস্যের বিপক্ষে ইনিংসে ৫ উইকেট নেয়ার রেকর্ড করলেন তিনি। এই লিস্টে তিনিই প্রথম এবং একমাত্র অলরাউন্ডার। এবং এই ৯টি টেস্ট সদস্যের সবার বিপক্ষেই তার সর্বোচ্চ ইনিংসগুলোর সব কয়টাই ৪০ রানের ওপরে এবং এই কীর্তি শুধু তার একার। শুধু তাই নয়, এদের  মধ্যে  শুধু দক্ষিণ আফ্রিকা ছাড়া সবার বিপক্ষেই সাকিবের সর্বোচ্চ ইনিংসগুলোর সব কয়টি ৮০ এর ওপরে। এছাড়া ভবিষ্যতেও এহেন রেকর্ডের সুযোগ আছে টেস্ট ঘরানার নব্য সদস্য আফগানিস্তান ও আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষেও। সুতরাং বাংলার রেকর্ডপুত্রের রেকর্ডের রথ যে এখানেই থামছে না, তা বলাই বাহুল্য।

সাকিব প্রসঙ্গ এবার পাশে সরিয়ে দেখে নিই টাইগারদের ২য় দিনের অবস্থা। আগের দিন যে রাশ টেনে ধরা হয়েছিল অজিদের গলায়, আজ সেটা একটুও আলগা করেননি টাইগার স্পিনাররা। অজিদের সব কটি উইকেট স্পিনাররা নিয়েছেন, যদিও উইকেট না পেলেও কাটার মাস্টার মুস্তাফিজ তার স্বভাবসুলভ ভ্যারিয়েশনের কারিকুরি দেখিয়ে যথেষ্ট ভুগিয়েছেন। মৃত্যুকূপে ধরতে না পেরে মেরে খেলার প্র্যাক্টিস করতে থাকা অজিদেরকেও ৮ ওভারে নিতে দিয়েছেন মাত্র ১৩ রান।

মেহেদী মিরাজও ছিলেন অপ্রতিরোধ্য। কে কার আগে ৫ উইকেট পাবেন সাকিবের সঙ্গে সেই প্রতিযোগিতাতেও ছিলেন ভালোমতই, তবে শেষমেষ সাকিবই জিতে নিলেন সেই লড়াই।

সাকিব ও টাইগারদের দিনে অজিদের ৯ম উইকেটের জুটি, আর দিনের শেষভাগে জঘন্য শটে সৌম্য সরকারের বিদায়, খুঁত বলতে ছিল এইটুকুই।

আগামীকালকের প্রথম সেশনটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভালোমত কাটিয়ে দিয়ে অজিদের ২৫০ রানের ওপরে টার্গেট দিতে পারলেই হল, আরেকটি ইতিহাস হাতের মুঠোয় ধরা দেবে শীঘ্রই।

শেষ করবো আবার সাকিব আল হাসানকে দিয়েই। কিছুদিন আগে, খুব সম্ভবত ইংল্যান্ডের সাথে দেশের মাটিতে টেস্ট সিরিজে কোন এক ধারাভাষ্যকার প্রথমবার বলেছিলেন কথাটা-

“You just can’t keep Shakib out of the game, can you?”

না, সাকিবকে একপাশে সরিয়ে রাখা, তাকে ঠেকানো প্রতিপক্ষের জন্য সম্ভব না, তারা যত প্রস্তুতি-ই নিয়ে আসুক না কেন! এই সাকিব এখন খেলার আগেই কথার লড়াই শুরু করে দিতে জানেন। ‘উদ্ধত’, ‘বেয়াদব’ এর মত এভাবেই বারবার প্রতিপক্ষের স্বাভাবিক খেলায় নাক গলাতে থাকুন সাকিব, ব্রিটিশদের পর উঁচু নাকটা একটু ছেঁটে দিন অজি’দেরও!

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top