নাগরিক কথা

এসএমএস: একটি অভিব্যক্তি মাধ্যমের অপমৃত্যু

এসএমএস নিয়ন আলোয় neon aloy

সালটা ২০০২ কিংবা ২০০৩ হবে। বিশ্ব ভালবাসা দিবসকে সামনে রেখে গ্রামীনফোন নামকরা একটি দৈনিকে অর্ধপাতা জুড়ে একটি বিজ্ঞাপন দেয়। সেই প্রথম জানলাম মোবাইল থেকে পাঠানো যাবে “যান্ত্রিক চিঠি”-এসএমএস। তবে এখনকার বাজার দর চিন্তা করলে সে আমলে এসএমএস এর চড়ামূল্য নিয়ে আন্দোলনও হতে পারত। ২টাকা ৩০ পয়সা/এসএমএস (ভ্যাটসহ)! তবে পালসবিহীন ৬টাকা ৯০ পয়সা (ভ্যাটসহ) কলরেটের যুগে সেটা এক স্বস্তির বিষয় ছিল বৈকি! তবে, শুরুর দিকে এসএমএস-এর প্রতি যে খানিক জড়তা মোবাইল ব্যবহারকারীদের ছিল, তা দূর হল জাতীয় দিবস উপলক্ষে তিন দিনের ফ্রি এসএমএসের কল্যাণে। সে সময়কার ছাত্র আমরা ঝাপিয়ে পড়লাম এসএমএস মিছিলে। এরপর হয়ে গেল অভ্যাস! ফ্রি-ট্রি আর লাগলো না। ওই ২টাকা ৩০ পয়সা খরচেই চলতে থাকলো এসএমএস।

ক্লাসে বসে লুকিয়ে আড্ডা, ব্যস্ততার কথা জানানো, বিভিন্ন উৎসবের অভিবাদন, ঝগড়ার পরে অভিব্যক্তি জানানো, হৃদয়ের কথা জানানো, এমনকি বাজারের ফর্দ… কি হতো না এসএমএসের মাধ্যমে? অনেক সম্পর্ক ভাঙ্গাগড়ার গল্প জানতো এই এসএমএস। সুখেই ছিলাম আমরা এসএমএস নিয়ে। ওটাই তখন লেটেস্ট প্রযুক্তি। আর ইন্টারনেট লেখা আইকনটা চোখে পড়লেই ওটাকে এড়িয়ে যেতাম আর ভাবতাম- “ওটা বিদেশের মানুষের জন্য”।

সময়ের চাকা ঘুরতে লাগল। আলো জ্বাললো ইন্টারনেট। যোগাযোগের মাধ্যমটা হয়ে গেল সহজ, কিন্তু এলোমোলো। এখন দশ ধরনের সোশ্যাল মাধ্যমে ২০ ধরনের অ্যাকাউন্ট নিয়ে কনফিউজড স্টেটে চলতে লাগলো আমাদের যোগাযোগ। আর এসএমএস? sad dog এর মত পড়ে রইল মোবাইলের এক কোণে মুখ লুকিয়ে!

এমনিতেই এসএমএস-এর ব্যবহার হয়েছে সীমিত, তার ওপর শুরু হয়েছে নতুন নির্যাতন। আমার যত্নে রাখা ইনবক্স এখন আর আমার নেই। হানা দিয়েছে অফার, ডিসকাউন্ট আর প্রমোশনাল মেসেজ। অপারেটরগুলো আর বিভিন্ন কোম্পানির বাল্ক মেসেজ এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে এখন এসএমএস-এর নোটিফিকেশন আসলেই মনে হয় কোনো অফার এল মনে হয়। আর খোলা হয় না ইনবক্স। মাঝে তো এমনও হয়েছে, একটা গুরুত্বপূর্ণ মিটিং-এর মেসেজ দেখেছি সেটা চলে যাবার ১দিন পর!

এসএমএস পাঠিয়ে এখন আর আশ্বস্ত হওয়া যায় না, যে প্রাপক তা পড়লেন কিনা। আর তাই তো, এসএমএস হারিয়েছে তার অতীত জৌলুস, আড়াই টাকার এক এসএমএস এখন বিক্রি হয় ঝুড়ি ভর্তি করে। ২০০ এসএমএস ৫ টাকা! সেটাও জানানো হয় এসএমএস দিয়েই।

অফলাইনে এসএমএসের চেয়ে মধুর যোগাযোগ আর ছিল না বলেই ধারণা আমার। তবে অপ্রয়োজনীয় এসএমএস-এর দাপট অপমৃত্যু ঘটিয়েছে সুন্দর এ মাধ্যমটির। কে জানে, আবার কোনেদিন সকালে উঠে দেখতে পারব কিনা “আমার অফার” (যা আমি স্বপ্নেও চাই নি) এ “আমার ইনবক্স”(যা আসলে অপারেটর আর কোম্পানিদের দখলে) ভর্তি নেই। বরং, কোনো প্রিয়জনের “শুভ সকাল” লেখা খুদে বার্তা আলো ছড়াচ্ছে ইনবক্সে।

লেখকঃ মনদীপ ঘরাই,
সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট।

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top