নাগরিক কথা

আপনার সন্তানের নিরাপত্তায় সচেতন হোন এখনই

সন্তানের নিরাপত্তা নিয়ন আলোয় neon aloy

আপনার আত্মীয়-স্বজনের হাত থেকে আপনার শিশু সন্তান নিরাপদ তো!

শুনতে খারাপ লাগতে পারে, তবে বিশ্বাস করুন আর না করুন, সবচেয়ে ভয়ঙ্কর হাত কিন্তু আপনার কাছের আত্মীয় স্বজনদের হাত। যাদের নিয়মিত যাওয়া আসা আপনার বাসায়। সবার কথা বলছি না। মানুষের ভিতরেই কিছু অমানুষ থাকে যারা দেখতে মানুষের মতই, শুধু সেই হাতগুলোকেই ইন্ডিকেট করছি।

আপনার বাসার গৃহকর্মীও এর বাইরে নয়।
যাকে বিশ্বাস করে ঘরের দায়িত্ব দিয়ে আপনি অফিসে যান। যার সাথেই আপনার সন্তান দিনের বড় একটা সময় কাটায়।

মেডিকেল সায়েন্স বলে, শিশুদের মধ্যে যৌনতা বিষয়ক বিরুপ ধারণা একদিনে তৈরি হয় না। সে বড় হওয়ার সাথে সাথে সবকিছু বুঝতে শিখে। আস্তে আস্তে তার আশেপাশের মানুষ থেকে দেখতে দেখতে যৌনতা বিষয়ক খারাপ ধারণাগুলো নিজের ভিতরে তৈরি হতে থাকে।

আপনার বাসায় নিয়মিত আসা যাওয়া করে এমন কেউ, যাদের উপর আপনার আস্থার মাত্রাটা বেশি, যাদের হাতে মনে করেন আপনার সন্তান নিরাপদ, এমন কেউ খেলার ছলে হোক বা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত হয়ে হোক আপনার শিশু সন্তানের স্পর্শকাতর জায়গায় হাত দিয়ে বসলে আপনার সন্তান প্রথম ধাক্কাটা কিন্তু সেখান থেকেই পেলো। পৃথিবীকে ভালোবাসতে শুরু করার সময়ই পৃথিবীর মানুষগুলোর কাছ থেকে বিরাট একটা বিরুপ ধারণা সে পেয়ে গেলো।

সন্তানকে বাসায় রেখে অফিসে যান। সন্তানের সান্ত্বনার জন্য হাতে দিয়ে যান মোবাইল,ট্যাব সহ যাবতীয় ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস। আপনার সন্তান হয়তো এসব ডিভাইস মানেই শুধু গেম বুঝে। কিন্তু তার সাথে রেখে যাওয়া গৃহকর্মী এসব ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস দিয়ে হয়তো গেমের চেয়ে বেশি কিছু বুঝে।

“প্রথম আলো ” পত্রিকায় একটা নিউজ পড়েছিলাম। সন্তানের হাতে রেখে যাওয়া মোবাইল চেক করতে গিয়ে মা দেখতে পান সার্চবারে সব পর্ণ সাইটের লিংক। ঘটনার মূল খুঁজতে গিয়ে বের হয়, সন্তানকে গৃহকর্মীর সাথে রেখে মা-বাবা চলে যেতেন অফিসে আর গৃহকর্মী এসব পর্ণ সাইটে ঢুকে শিশুটিকে এসব দেখাতো আর তার সাথে অশালীন কাজ করার চেষ্টা করতো।
বিশ্বাস করবেন কাকে?

আপনার সন্তানের বয়স বাড়ার সাথে সাথে সে বুঝতে শিখছে তার শরীরে এমন কিছু জায়গা আছে যেখানে স্পর্শ লাগলে তার ভিতরে কিছু একটা অনুভূত হয়। আর তার পরিচিত কেউ, যাকে সে আত্মীয় বলে জানে এমন কেউ তার শরীরের সেসব জায়গায় হাত দেয়, তবে এই শিশু বয়সেই তার মাঝে তৈরি হতে থাকবে এক অস্থিরতা। যা সে পারবে না কারো সাথে শেয়ার করতে, না পাবে এ যন্ত্রণা থেকে মুক্তি।

বড় হতে হতে আপনার অজান্তেই আপনার সন্তান এসবের দিকে প্রভাবিত হতে থাকে। খুব বাজে ভাবেই প্রভাবিত হয়। তার পরিবশেই তাকে প্রভাবিত করে ফেলেছে। যাদের হাতে বিশ্বাস করে আপনার সন্তানকে নিরাপদ মনে করেছেন তাদের দ্বারাই প্রভাবিত হয়েছে।

এখন সচেতনতার দায়িত্বটা আপনার।
আপনার সন্তানকে নিরাপদ রাখার দায়িত্ব আপনাকেই নিতে হবে।

ইন্টারনেট আর গ্যাজেটসের এই যুগে যাদেরকে আমরা শিশু ভেবে “ধুর! সে এতকিছু বুঝবে না” মনে করছি, তারাই কিন্তু এখন শিশু বয়সেই অনেক কিছু বুঝে।

ভালো জিনিসের চেয়ে খারাপ জিনিসের প্রতি প্রভাবিত হওয়ার প্রবণতা মানুষের স্বভাবজাত প্রবৃত্তি। শিশুদের বেলায় তো এই প্রবণতা আরো চরম।

সুতরাং সচেতন হোন এখনই।
আমাদের পরিবার, আমাদের সন্তান আর আমাদের পরিবারের শিশুদের নিরাপত্তার দায়িত্বটা কিন্তু আমাদেরকেই নিতে হবে!

লেখকঃ এ এম কাওসার

সমসাময়িক কোন বিষয় নিয়ে আপনার লেখা শেয়ার করতে চান সবার সাথে?
আমাদের ইমেইল করুন neonaloymag@gmail.com – এই ঠিকানায়।

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top