টুকিটাকি

GRE- কতটুকু খাবেন, আর কতটুকু মাথায় দিবেন! (পর্ব-১)

GRE নিয়ন আলোয় neon aloy

“Graduate Record Examination” এর সংক্ষিপ্ত রূপ হলো “GRE”। এটি Educational Testing Service (ETS) – এর একটি রেজিস্টার্ড এডুকেশনাল ব্র্যান্ড। উচ্চশিক্ষা অর্জনের উদ্দেশ্যে প্রতিবছর প্রচুর পরিমাণে শিক্ষার্থী বাইরের দেশগুলোতে অ্যাপ্লাই করেন। এর মধ্যে যারা যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে যেতে আগ্রহী, তাদের কাছে GRE বেশ পরিচিত একটি টার্ম। GRE নিয়ে দুই পর্বের এই লেখায় আজকে বিস্তারিত বর্ণনা করবো এ পরীক্ষার বিস্তারিত স্ট্রাকচার, কোন সেকশনে কি নিয়ে প্রশ্ন করা হয় এবং কিরকম সময় পাওয়া যায় সে প্রশ্নগুলোর পিছনে। সেই সাথে আলোচনা করা হবে পরীক্ষায় অ্যাটেন্ড করার নিয়মাবলী।

GRE কেন দিবো?

আমেরিকার ভালো বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এমএস/পি.এইচ.ডি প্রোগ্রামে এপ্লাই করার যোগ্যতা হিসেবে “GRE” পরীক্ষাটি দিতে হয়।
আমেরিকানরা অনেক চালাক। তাদের কাছে একটা ইউনিভার্সিটির CGPA ছাত্র/ছাত্রীর মেধা বিবেচনার ক্ষেত্রে কোন মানদণ্ড নয়। একটা উদাহরণ দেই- বাংলাদেশে কিছু ইউনিভার্সিটিতে CGPA একটু বেশি আসে। পড়াশুনা করলেই 3.90/4.00 পাওয়া যায়। কিন্তু কিছু ইউনিভার্সিটিতে 3.25 তুলতেই ডায়রিয়া হয়ে যায়। তাই আরও ভালোভাবে ছাত্র/ছাত্রীকে যাচাই করার জন্যই আমেরিকানরা এই “GRE” নামক অখাদ্যটির আয়োজন করে থাকে।

আম্রিকায় পড়াশোনা করিতে চাইলে GRE-তে কত স্কোর করিতে হইবে?

আধুনিক GRE পদ্ধতিতে সব মিলিয়ে ৩৪০ এর মাঝে আপনাকে পরীক্ষাটা দিতে হবে। Verval Reasoning এ থাকে ১৭০ আর Quantitative (Math)-এ থাকে ১৭০। আরেকটা পার্ট থাকে যার নাম “Analytical Writing”; এই পার্টের হিসেবটা একটু আলাদা (এই ব্যাপারে পরে আলোচনা করেছি)। ৩০০+ স্কোর করাটা ভাল। আর আমি বলবো ৩০৫+ স্কোর করতে। টার্গেট রাখবেন অনেক বেশি স্কোর করার। তাহলে সহজেই ৩১০+ পেয়ে যাবেন।

একটা মজার তথ্য দেই – আপনি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করলেই পাবেন ২৬০। পুরাই ফ্রিতে পাবেন। কোন ভেটও দেয়া লাগবে না। বাকি ৮০ নাম্বারে আপনাকে পরীক্ষা দিতে হবে।

এই ৮০ মার্কসের মধ্যে ৪০ মার্কস থাকবে “Verbal Reasoning” আর ৪০ হলো “Quantitative Reasoning”
শুনতে খুবই সহজ লাগে। মাত্র ৮০ মার্কসের মধ্যে পরীক্ষা! কিন্তু কাহিনী হলো- এই ৮০ মার্কসের মধ্যে দুই পার্ট মিলিয়ে ৪০+ তুলতেই মাথার ঘাম আর পায়ের ঘাম এক হয়ে যায়।

Structure

পরীক্ষায় সব মিলিয়ে ৬টা সেকশন থাকবে। প্রথম সেকশনের নাম “Analytical Writing”। আর বাকি ৫টা সেকশনের মাঝে হয় ৩টা সেকশন থাকবে “Verbal”, আর বাকি ২টা সেকশন থাকবে “Quantitative”। তা না হলে “Verbal” থাকবে ২টা আর “Quantitative” থাকবে ৩টা।

Analytical Writing– এই পার্ট দিয়েই আপনার পরীক্ষা শুরু হবে। এখানে দুইটা প্রশ্ন থাকবে। দুইটার প্রতিটাতে সময় ৩০ মিনিট করে ১ ঘণ্টা। প্রথম ৩০ মিনিটের যে প্রশ্নটা থাকবে সেটাকে বলা হয় “Issue Topic”। এক লাইনের একটা টপিক লেখা থাকবে। সেই এক লাইন পড়ে আপনি কি বুঝলেন সেটা নিয়ে একটা “Essay” লিখবেন। এখানের ৩০ মিনিট শেষ হওয়ার পর যে প্রশ্নটা আসবে সেটাকে বলা হয় “Argument Essay”। ৪-৫ লাইনের একটা টপিক লেখা থাকবে। সেটা পরে আপনাকে যুক্তি দিয়ে একটা Essay লিখতে হবে। মানে টপিকটা আসলেই সঠিক, নাকি সঠিক না সেই ব্যাপারে যুক্তি উপস্থাপন করে Essay লিখাটাই এখানে কাজ। ব্যাপারটা আরও ক্লিয়ারভাবে বুঝতে নিচের দুইটা লিংকে ঢুঁ মারেন।

লিঙ্কঃ GRE Issue Essay Test Practice
লিঙ্কঃ GRE Argument Essay Test Practice

এই সেকশনে দুইটা মিলিয়ে ৬ এর মাঝে ৪ এর মতো পেতে চেষ্টা করবেন। আর তার উপরে পেলে তো কথাই নেই। Minimum ৩ যাতে পাওয়া যায় সেটা খেয়াল রাখবেন। এই সেকশনের নাম্বারটা সম্পূর্ণ আলাদা হিসেব করা হয়। কারণ, আমেরিকার কিছু ইউনিভার্সিটিতে Apply করার ক্ষেত্রে “Analytical Writing” সেকশনে ৩+ স্কোর থাকা বাধ্যতামূলক।

Verbal Reasoning- এই টেস্টের মাধ্যমে দেখা হবে পরীক্ষার্থীর ইংরেজী শব্দ ও বাক্যের উপর দক্ষতা কত। Verbal এর প্রতিটা সেকশনের ক্ষেত্রে সময় পাবেন ৩০ মিনিট। প্রশ্ন থাকবে ২০টা। Verbal-এ মুলত তিনটা জিনিস থেকে প্রশ্ন থাকে। একটা হচ্ছে “Comprehension”, একটা হচ্ছে “Text Completion” আর একটা Sentence Equivalence। ২০টা প্রশ্নের মাঝে ৩-৪টা প্রশ্ন থাকে “Text Completion” এর উপর আর বাকি প্রশ্নগুলা থাকে “Comprehension” আর Sentence Equivalence এর উপর। ৪-৫টা মোটামুটি বড় সাইজের “Comprehension” থাকবে; সেটা পড়ে আপনাকে উত্তর করতে হবে। মানে এক পেইজে একটা “Comprehension” দেয়া থাকবে। সেই “Comprehension” এর উপর ২-৩টা প্রশ্ন দেয়া থাকবে। আপনাকে “Comprehension” পড়ে সেই প্রশ্নগুলোর সঠিক উত্তর দিতে হবে। তারপর আবার একটা “Comprehension” থাকবে; সেটার উপরে কিছু প্রশ্ন থাকবে। আপনাকে আবারও নতুন এই “Comprehension” পড়ে উত্তর দিতে হবে। এইভাবে প্রায় ১০টা “Comprehension” ভিত্তিক প্রশ্ন আপনাকে সমাধান করতে হবে। কোন কোন “Comprehension” থেকে মাত্র ১টা প্রশ্নও উত্তর করতে হতে পারে।

“Text Completion” ব্যাপারটার একটা উদাহরণ দেইঃ
The avalibility of oxygen is essential ______ for animal life.
A. Condition
B. Conversion
C. Luxury

এইটা একটা সহজ উদাহরণ। এই রকমভাবে শূন্যস্থান আর তার নিচে চয়েস দেয়া থাকবে। আপনাকে সঠিকটা মার্ক করতে হবে। এখানে তো মাত্র একটা শূন্যস্থান উদাহরণ হিসেবে দিয়েছি। কিন্তু মেইন পরীক্ষায় একের অধিক (২-৩টা) শূন্যস্থানও থাকবে এবং সেই ক্ষেত্রে আনসারও একের অধিক হবে।

Quantitative Reasoning- এটা Mathematical Section। এই সেকশনের ক্ষেত্রে আপনি সময় পাবেন ৩৫ মিনিট। আর প্রশ্ন থাকবে ২০টা। এটার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট কোন সিলেবাস নেই। যে কোন দিক থেকেই প্রশ্ন হতে পারে। কিন্তু ঘাবড়ানোর কিছু নেই। সিম্পল ব্যাপারগুলাই একটু ঘুরিয়ে প্রশ্ন করা হয়। মূলত Geometry, Algebra Expressions, Inequalities, Graphs, Averages, Percents, Statistical problems থেকেই প্রশ্ন হয়ে থাকে বেশি। যারা কমার্স কিংবা আর্টস ব্যাকগ্রাউন্ডের শিক্ষার্থী, তাদেরও ঘাবড়ানোর কিছু নেই। মূলত এমনভাবেই প্রশ্নটা করা হয় যেন সব ফ্যাকাল্টির ছাত্রছাত্রীরাই উত্তর করতে পারে। আমরা ছোটবেলায় পাটিগণিত টাইপের যে অংকগুলা করতাম, সেই অংকগু GRE পরীক্ষায় বেশ কাজে দেয়।

যদি এখনও পরীক্ষার Structureটা না বোঝেন, তাহলে নিচের লেখাটা পড়েনঃ
আমার GRE পরীক্ষার সময় প্রথমে ৩০ মিনিট+৩০ মিনিট =১ ঘণ্টা “Analytical Writing” শেষ করার পর আসে “Verbal Reasoning” সেকশন। তারপর এই সেকশনের ৩০ মিনিট শেষ হওয়ার পর আসে “Quantitative Reasoning” সেকশন। এটার ৩৫ মিনিট শেষ হওয়ার পর ১০ মিনিটের বিরতি।

বিরতির পর আসে আবারও “Verbal Reasoning” সেকশন। তারপর আবারও “Quantitative Reasoning” সেকশন। এটা শেষ হওয়ার পর আবার “Verbal Reasoning” সেকশন আসার মাধ্যমে ৬টা সেকশনের সমাপ্তি। মানে আমাকে সব মিলিয়ে ২টা “Quantitative Reasoning” সেকশন আর ৩টা “Verbal Reasoning” সেকশন সমাধান করতে হয়েছে। এটার কোন নির্দিষ্টতা নেই। আপনার ক্ষেত্রে হয়তোবা ৩টা “Quantitative Reasoning” সেকশন আর ২টা “Verbal Reasoning” সেকশন আসতে পারে।

পরীক্ষা কোথায় দিবো?

বাংলাদেশে GRE পরীক্ষা দেয়ার জন্য বেশ ভালো ৩টা সেন্টার হলঃ

  • American Alumni Association(AAA)
  • American International University-Bangladesh(AIUB)
  • DNS Software Limited

যে মাসে পরীক্ষা দিবেন, চেষ্টা করবেন তার ২-৩ মাস আগে GRE এর রেজিস্ট্রেশনটা কমপ্লিট করে ফেলতে। কারণ এই ৩টা সেন্টারে অনেক দ্রুত সিট ফিল-আপ হয়ে যায়। দেরী করী ফেললে পরে কাংক্ষিত মাসে সিট খালি পাবেন না।
বিস্তারিত Information পাবেনETS এর অফিসিয়াল GRE ওয়েবসাইটে। মানে কবে কবে পরীক্ষা দেয়া যাবে, সিট প্ল্যানিং- সব রকমের তথ্য।

রেজিস্ট্রেশন

রেজিস্ট্রেশনের ধাপগুলোতে কিভাবে কি করবেন,তার বিস্তারিত সবকিছু পাবেন ETS এর অফিসিয়াল GRE ওয়েবসাইটে।

পরবর্তী পর্বে আলোচনা করবো আমার নিজের পরীক্ষার অভিজ্ঞতা, কিভাবে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম, ছোটখাটো কিছু ট্রিকস এবং পরীক্ষার দিনের বিস্তারিত।

 

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top