টাকা-কড়ি

একচেটিয়া ব্যবসা করে যাওয়া কিছু বহুজাতিক কোম্পানি

মাল্টিবিলিয়নিয়ার কোম্পানির কথা মনে হলেই সবার আগে চোখে ভেসে উঠে মাইক্রোসফট, স্যামসাং বা ফেরারি’র লোগো। কিন্তু এগুলো ছাড়াও বেশ কিছু কোম্পানি আছে যারা দশকের পর দশক ধরে একচেটিয়া ব্যবসা করে যাচ্ছে বিশ্বব্যাপী। এদের কোন কোনটি শতবর্ষ পুরনো পারিবারিক উদ্যোগ, আবার কোনটি একক প্রচেষ্টায় গড়ে ওঠা মহীরুহ। একনজরে জেনে নেয়া যাক এসব শীর্ষ কোম্পানী সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ন তথ্য ।

 

কোকাকোলা

কোম্পানি

প্রতিদিন কোকাকোলার ভোক্তাসংখ্যা গড়ে ১.৭ বিলিয়ন

কোকাকোলা একটি মার্কিন বহুজাতিক কোমল পানীয় প্রস্তুতকারক কোম্পানি। তাদের হেডকোয়ার্টার যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া প্রদেশের আটলান্টায় । এই কোম্পানিটি তাদের অন্যতম পন্য কোকাকোলার জন্য অধিক পরিচিত, যা ১৯৮৬ সালে ফার্মাসিস্ট জন স্টিথ পেম্বার্টন উদ্ভাবন করেন। কোকাকোলার বর্তমানে ২০০টিরও অধিক দেশ বা অঞ্চলে ৫০০টিরও অধিক ব্র্যান্ড রয়েছে এবং প্রতিদিন তারা ১.৭ বিলিয়ন মানুষকে তা পরিবেশন করে থাকে। এই কোম্পানি ১৮৮৯ সাল থেকে এক ধরণের ফ্রাঞ্জাইজি ভিত্তিক বিপণন ব্যবস্থা চালু রেখেছে যেখানে কোম্পানিটি শুধুমাত্র সিরাপ জাতীয় পন্য প্রস্তুত করে যা বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন কোম্পানির কাছে বিক্রয় করা হয় যারা বিশ্বব্যাপী তা বিপনন করে। এ কোম্পানীর নীট আয় ৮.৫৮৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৯০.০৫৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার । তাছাড়া এ কোম্পানীতে কাজ করা কর্মীর সংখ্যা প্রায় ১,৩০,৬০০ জন ।

 

পি এন্ড জি

কোম্পানি

প্রোক্টর অ্যান্ড গ্যাম্বল নামটি বাংলাদেশে খুব একটা পরিচিত না হলেও এই কোম্পানির প্রচুর পণ্য আপনি প্রতিদিন ব্যবহার করছেন

প্রক্টর এন্ড গ্যাম্বল সংক্ষেপে পি এন্ড জি কোম্পানি একটি আমেরিকান বহুজাতিক ভোগপণ্য কোম্পানী । মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইও শহরের সিনসিনাটিতে এর সদরদপ্তর অবস্থিত । এ কোম্পানীর নীট আয় ৭৬.২৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, মোট সম্পদের পরিমাণ ১২৯.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং এতে কর্মরত কর্মীসংখ্যা প্রায় ১,১০,০০০ ।

 

পেপসিকো

পেপসিকো ইনকর্পোরেশন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি বহুজাতিক কোম্পানি। নিউ ইর্য়কের পারচেইজে এ কোম্পানিটির সদর দপ্তর অবস্থিত। ১৮৯৩ সালে ক্যালেব ব্র্যাডহাম নামে একজন তরুণ ফার্মাসিস্ট কার্বনেটেড পানি, চিনি, ভ্যানিলা, এক ধরণের বিরল তেল এবং কোলা বাদামের সংমিশ্রনে একটি কোমল পানীয় তৈরী করেন যা পরবর্তীতে ‘পেপসি-কোলা’ নামে নামকরন করা হয় । এই নতুন ড্রিংক এর তুমুল জনপ্রিয়তা দেখে তিনিই একক প্রচেষ্টায় সর্বপ্রথম পেপসিকোলা কোম্পানী গঠন করেন । বর্তমানে এ কোম্পানীটির নীট আয় ৬.৩৩৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং মোট সম্পদের পরিমাণ ৬৮.১৫৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ।

নেসলে

কোম্পানি

সারা পৃথিবীতেই মানুষের কাছে চকলেটের আরেক নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে নেসলে

নেসলে একটি সুইস বহুজাতিক খাদ্য ও পানীয় কোম্পানী । এটি বিশ্বের বৃহত্তম খাদ্য কোম্পানী বলে গন্য করা হয় এবং এর মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ১৩৩.৪৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার । সুইজারল্যান্ডের ভুয়াদ এর ভেভে শহরে এর সদরদপ্তর অবস্থিত। নেসলে পন্যগুলোর মধ্যে শিশুর খাদ্য, দুগ্ধজাত খাদ্যদ্রব্য, আইসক্রীম, বিভিন্ন প্রকারের মিষ্টান্ন, হিমায়িত খাদ্য, বিভিন্ন পানীয় উল্লেখযোগ্য । ১৯৪ টি দেশে নেসলের মোট ৪৪৭ টি কারখানা আছে ।

 

ক্রাফট

 কোম্পানি

স্বাস্থ্যকর ও সুস্বাদু খাবারের জন্য সমাদৃত ক্রাফট

ক্রাফট হেইঞ্জ ফুডস বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম খাদ্য ও পানীয় কোম্পানী । এটি মূলত একটি আমেরিকান খাদ্য প্রক্রিজাতকরন কোম্পানী যার সদরদপ্তর শিকাগো শহরে অবস্থিত । এর নীট আয় এবং মোট সম্পদের পরিমাণ যথাক্রমে ২.৭১৫ এবং ২৩.২৪৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ।

 

ইউনিলিভার

কোম্পানি

ইউনিলিভারের আছে নিজস্ব প্রায় ৪০০-রও বেশি সফল ব্র্যান্ড

নেসলে এবং পিএন্ডজি এর পরে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম ভোগপন্য কোম্পানী হচ্ছে ইউনিলিভার । এটি মূলত একটি ব্রিটিশ-ডাচ বহুজাতিক কোম্পানী । যুক্তরাজ্যের লন্ডনে এবং নেদারল্যান্ডের রোটেডামে এর সহ-সদরদপ্তর অবস্থিত । এর পণ্যগুলোর মধ্যে খাদ্য,পানীয়,পরিষ্কারক সামগ্রী এবং বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রী উল্লেখযোগ্য । থাকলেও এটি মূলত ১৪টি ব্র্যান্ডের উপর জোর দেয় যার প্রত্যেকটি হতে আয় হয় .৫ বিলিয়ন ইউরো ।

 

মার্স

কোম্পানি

সব বয়সের মানুষের পছন্দের চকলেট ব্র্যান্ড মার্স

মার্স একটি আমেরিকান খাদ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান । যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায় এর সদর দপ্তর অবস্থিত এবং এর আয় প্রায় ৩৫ বিলিয়ন ডলার ।

 

জনসন এন্ড জনসন

কোম্পানি

শিশু প্রসাধনীর বাজারে অপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্র্যান্ড

১৮৮৬ সালে প্রতিষ্ঠিত জনসন এন্ড জনসন একটি আমেরিকান বহুজাতিক মেডিকাল ডিভাইস, ফার্মাসিউটিক্যালস এবং বিভিন্ন প্যাকেজড পণ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান । নিউ জার্সির ব্রান্সউইকে এর সদরদপ্তর অবস্থিত । বিভিন্ন ওষুধ সামগ্রী, ফার্স্ট এইড, শিশুপণ্য ছাড়াও এ কোম্পানী বিভিন্ন প্রসাধনী ও পরিষ্কারক সামগ্রী সরবরাহ করে থাকে । এ কোম্পানীর মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ১৩৩.৪১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ।

 

আরো জেনে নিতে পারেন ব্র্যান্ড মূল্যে শীর্ষ ১০টি প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

To Top