ইতিহাস

প্রস্তরযুগের পানীয় কি ওয়াইন ছিল?

চিন্তা করুন তো, আদি মানুষের উৎসব, আতিথেয়তা বা ধর্মীয় রীতিনীতির কথা। আপনার মাঝে যে ছবি আসবে তা হয়তো অভিজাত সমাজের হাতে ওয়াইনের পাত্রের ছবি। কিন্তু আরকিওলজিকেল সায়েন্স এর এক গবেষণা এবং প্রাচীন গ্রিস সভ্যতার ধংসাবশেষ থেকে পাওয়া তথ্য আমাদের জানাচ্ছে, আমরা যে সময় থেকে ধারণা করতে পারি, তারও আগে থেকে, সেই প্রাচীন প্রস্তরযুগের পানীয় হিসেবেই সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় ছিল ওয়াইন।

১৯৯০ সালের শুরুর দিকের কথা। আরকিওবোটানিস্ট সুলতানা ভালামতি (Aristotle university of Thesalaniki) ১৯২০ সালে আবিষ্কৃত দিকিলি তাশ (Dikili tash) নামক গ্রিক ধংসাবশেষে  (নিওলিথিক এজ/ লেট স্টোন এজ) গবেষণা শুরু করেন। প্রথমেই ভালামতি খুঁজতে শুরু করেন প্রাচীন সেই গ্রামের অধিবাসীরা কি খেত? একটি সাধারণ সুত্র আপনাকে ধারনা দেবে মানুষ ও তাদের শস্য বা প্রাকৃতিক খাদ্যসম্ভারের। ভালামতি বিভিন্ন প্রাপ্ত উপকরণ পরীক্ষা করে দেখতে পান হাজারো আঙুরের বীজ ও রস ধারনের পাত্র যা ওয়াইন প্রস্তুতির দিকেই ইংগিত করে।
পরবর্তীতে ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সোসাইটির সহায়তায় ভালামতি এবং অন্য গবেষকগন প্রাচীন ওয়াইন গবেষনায় ২০০৮-২০১৩ এর অভিযাত্রায় আরও কিছু ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পান যেখানে শুধু মাত্র একটি-দুটি নয়, হাজারো প্রস্তরযুগের পানীয় এর পাত্র পাওয়া যায়। পাত্রের সূক্ষ্ম রাসায়নিক বিশ্লেষণে খোঁজ পাওয়া যায় টারটারিক এসিডের, যা আঙ্গুরের উপাদান এবং অবশ্যই এলকোহল। এছাড়াও সেই গবেষকের দল আরো কিছু পাত্র আবিষ্কার করেন যা তাদের মতে ওয়াইন পরিবেশনে ব্যবহৃত হতো।
PHOTOGRAPH BY LUIGI SPINA, ELECTA, MONDADORI PORTFOLIO

PHOTOGRAPH BY LUIGI SPINA, ELECTA, MONDADORI PORTFOLIO

ভালামতির ভাষ্যে, ”আমরা প্রস্তরযুগের পানীয় ওয়াইন প্রস্তুত, পরিবেশন ও সংরক্ষনের প্রতিটা ধাপই খুঁজে  পেয়েছি। কিভাবে আমরা নিশ্চিত হয়েছি এটি শুধুমাত্র ওয়াইন? কারন আমরা সব সম্ভাবনা যাচাই করে দেখেছি।”
কিন্তু, খ্রিস্টপূর্ব  ৪৩০০ এর আগের ভালামতির আবিষ্কারই “মদ্যযুগের” শেষকথা নয়। Patrick Mcgover, যিনি “বিয়ার আরকিওলজিস্ট” নামে পরিচিত তার এক গবেষণা মতে ইরানে খ্রিস্টপূর্ব ৫৪০০ এর আগেও ওয়াইনের প্রচলন ছিল। আর, ভালামতির আবিষ্কার ইউরোপের সবচেয়ে প্রাচীন ওয়াইনের প্রচলনের এখন পর্যন্ত পাওয়া স্পষ্টতম প্রমাণ।
Mcgover এর গবেষনায় আরো পাওয়া যায় নিওলিথিক চায়নায় ৯০০০ বছর আগে বিয়ার পান করা হতো এবং কিং মিডাস টম্ব থেকে তিনিই উদ্ধার করেন প্রাচীন বিয়ারের রেসিপি।
বেশিরভাগ  গবেষনায় দেখা যায় ব্রোঞ্জ যুগের সময় থেকেই ওয়াইন অভিজাত শ্রেণীর মানুষের পানীয়। কিন্তু নিওলিথিক যুগে ওয়াইনের অস্তিত্ব প্রমান করে সেই প্রস্তর যুগ থেকেই যেখানে আঙ্গুর পাওয়া যেত, সেখানেই মানুষের প্রিয় পানীয়ের তালিকায় উঠে আসতো ওয়াইন। অর্থাৎ ওয়াইনের গ্রহণযোগ্যতা সকলের জন্যই।
ভালামতির মতে, “You can have wine, but not a heavily stratified society.” তিনি আরো বলেন, ” “It tells us people could get intoxicated 7000 years ago”.

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Most Popular

আর দশটি নিউজপোর্টালের মত যাচ্ছেতাই জগাখিচুড়ি না, "নিয়ন আলোয়" আমাদের সবার লেখা নিয়ে আমাদের জন্যই প্রকাশিত হওয়া বাংলা ভাষায় প্রথম পূর্ণাঙ্গ অনলাইন ম্যাগাজিন।

আজকের আলোচিত

Copyright © 2016 Neon Aloy Magazine

To Top